loading...

পলকের ঘোষণায় সিংড়ায় চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে অভিযান

0

নাটোরের সিংড়ায় পরিবহন খাতে চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু করেছে প্রশাসন। ট্রাক মালিক ও শ্রমিকদের নামে বিভিন্ন সংগঠন যে চাঁদা আদায় করতো, সেটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের ঘোষণার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গতকাল এই অভিযান শুরু করে স্থানীয় প্রশাসন। বিকাল পাঁচটার দিকে সিংড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুশান্ত কুমার মাহাতোর নেতৃত্বে সিংড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অটোরিক্সা চালকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের সময় আনোয়ার হোসেন নামে একজনকে আটক করা হয়।

নাটোর জেলা ট্রাক, ট্যাংক লরি ও কাভার্ড ভ্যান মালিক ও শ্রমিক যৌথ কল্যাণ তহবিলের নামে এই চাঁদা তোলা হতো। সিংড়ার ওপর দিয়ে যত গাড়ি চলত সবগুলো থেকে টাকা তোলা হতো। প্রতিটি মালবাহী গাড়ি থেকে ১৫০ টাকা তোলা হতো। এর ৫০ টাকা দেখানো হতো সিংড়া পৌরসভার ইজারা হিসেবে। প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, পৌরসভার ইজারা ছাড়া কোনো টাকা তোলা যাবে না।

 

সিংড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন, ‘প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক মহোদয়ের ঘোষণা প্রতিফলন ঘটলো। সিংড়া উপজেলাতে আজ থেকে আর কেউ অবৈধ ভাবে টাকা আদায় করতে পারবে না।’

জানতে চাইলে জেলা ট্রাক, ট্যাংক লরি ও কাভার্ড ভ্যান মালিক ও শ্রমিক যৌথ কল্যাণ তহবিলের সভাপতি আবদুস সাত্তার ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘এই ১০০ টাকার ৫০ টাকা আমরা নিতাম, ৫০ টাকা নিত ট্রাক মালিক সমিতি।

এই টাকা দিয়ে কী করতেন- জানতে চাইলে সাত্তার বলেন, ‘এই টাকা দিয়ে আমরা তিনটি গাড়ি করেছি। একজন মারা গেলে ২৫ হাজার টাকা লাগবে, মেয়ের বিয়ে দিলে ১০ হাজার, দুর্ঘটনায় হাত বা ভেঙে গেলে পাঁচ হাজার টাকা তাৎক্ষণিক এবং এরপর সংসার চালাতে সহযোগিতা করা হতো।

ইউনিয়নের জন্য জায়গা কেনা হয়েছে, বিল্ডিং করা হয়েছে। সব হিসাব আছে। আপনারা যাচাই করতে পারেন।’

এর আগে শনিবার বিকাল পাঁচ টায় সিংড়া কোট মাঠে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত নাগরিক সমাবেশে সিংড়া থেকে চাঁদাবাজদের উৎখাত করার ঘোষণা দেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক। এ সময় নিজের ফোন নম্বর (০১৭৬৬৬৯৯৯৯৯) দিয়ে তার সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শও দেন তিনি।

 

loading...