১০০ টাকায় মিলবে ‘জেএমআইয়ের কেএন৯৫’ মাস্ক

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :

মহামারি করোনাভাইরাস প্রতিরাধী কেএন নাইন্টি ফাইভ (KN95) মাস্ক বাজারে নিয়ে এলো চিকিৎসা সরঞ্জাম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জেএমআই গ্রুপ।সোমবার রাজধানীর একটি হোটেলে জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নতুন এই মাস্ক বাজারজাত প্রক্রিয়া শুরু করেছে জেএমআই।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) সভাপতি ডা. ইকবাল আর্সলান।

অনুষ্ঠানে জেএমআই গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুর রাজ্জাক কেএন৯৫ মাস্কের বিষয়ে বলেন, এই মাস্কটিতে ৫টি সুরক্ষা স্তর থাকছে। তারমধ্যে তিন স্তরে থাকছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ফিল্টার পেপার। পরীক্ষামূলক উৎপাদন শেষে ইতোমধ্যে দেশ-বিদেশের পরীক্ষাগারে মাস্কের মান ও যোগ্যতা পরীক্ষা করা হয়েছে।

আবদুর রাজ্জাক আরও বলেন, বর্তমানে আমদানি করা চীনা কেএন৯৫ মাস্ক দেশের বাজারে বিক্রি হচ্ছে প্রায় ৩০০ টাকায়। একই মানের মাস্ক ১০০ টাকায় বিক্রি করবে জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেড।

এসময় করোনার শুরুর দিকে সুরক্ষা সামগ্রী তৈরীসহ নানাভাবে সরকারকে সহযোগিতা করার কথা তুলে ধরেন জেএমআই গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

তিনি বলেন, গত বছরের এপ্রিলের পর দেশে যখন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃত্যুর হার বাড়তে শুরু করেছিল, তখন আন্তর্জাতিক মানের ফেস মাস্কসহ নানা সরঞ্জাম তৈরি করে আমরা সরকারকে সহায়তা দেই। যা ওই দুঃসময়ে দেশের অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের পক্ষে দেয়া সম্ভব ছিল না।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন জেএমআই গ্রুপের চেয়ারম্যান জাবেদ ইকবাল পাঠান। তিনি বলেন, করোনাকালে জেএমআই গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ডিএনএ সল্যুশনের ল্যাবের RTPCR মেশিনে প্রায় ১০ হাজার পুলিশ সদস্যের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। করোনা চিকিৎসার ওষুধও সরবারহ করা হয়েছে। এই ল্যাবে করোনার জিনম সিকোয়েন্স করছেন বেশ কয়েকজন গবেষক ও শিক্ষক। যারা ইতোমধ্যে ভাইরাসের গতিপ্রকৃতির গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চিহ্নিত করতে পেরেছেন।

জেএমআইয়ের পক্ষ থেকে মাস্ক সম্পর্কে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী এন৯৫, কেএন৯৫ কিংবা এফএফপিটুর মতো মাস্ক উৎপাদন হয় যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, দক্ষিণ-কোরিয়া ও ইউরাপের কিছু দেশে। বাংলাদেশে এসব মাস্ক উৎপাদনের কোনো মানদণ্ড না থাকায় চীনের নীতিমালা মেনে দেশে কেএন৯৫ মানের মাস্ক উৎপাদন করেছে জেএমআই। প্রায় এক বছর গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে নতুন এই মাস্কটি বাজারজাতের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

%d bloggers like this: