হালুয়াঘাটে বালু নেয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নিহত-১

0

মোঃরফিকুল্লাহ চৌধুরী মানিক, হালুয়াঘাট প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে বালু নেওয়াকে কেন্দ্র করে উপজেলার ১২নং স্বদেশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার সংঙ্গীয় ব্যক্তিদের হাতে আঃ কাদির মন্ডল (৬৫) নামে এক বৃদ্ধ খুন হয়েছেন। নিহত ব্যক্তি গাজীপুর গ্রামের হাজী আয়ূূব আলীর পুত্র। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার গাজীপুর গ্রামে নিহতের নিজ বাড়ীর সামনে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন হালুয়াঘাট সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো. খলিলুর রহমান ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাহমুদুল হাসান।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, ঘটনার দিন বিকেলে কংশ নদী থেকে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে উত্তোলিত বালু আনতে গাড়ি পাঠায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ। উত্তোলিত বালুগুলো নিহতের নিজস্ব জমিতে থাকার কারণে বাধা প্রদান করেন নিহত আঃ কাদির ও তার স্বজনরা।

এ খবর শুনে ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে সংঙ্ঘবদ্ধ দলবলে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে অর্তকিত হামলা চালায়। হামলায় বাধা প্রদানকালে আঃ কাদির কে ঘটনাস্থলে রাম দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পার্শবর্তী উপজেলা ফুলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে পথিমধ্যে মৃত্যুবরণ করেন।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই কুদ্দুস মন্ডল সাংবাদিকদের জানান, বাড়ির কাছে নাতনী নিয়ে বসা ছিলেন তিনি। হঠাৎ স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার সংঙ্গীয় লোকজন অর্তকিত হামলা চালায়।

এ সময় তিনি বাধা প্রদান করতে গেলে তাকেও মারধর করেন। এ বিষয়ে স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ এ প্রতিবেদকে মুঠোফোনে বলেন, তিনি মারধর করেনি। হত্যাকান্ডের বিষয়ে তিনি অবগত নন। একটি মহল তাকে ঘটিনাটির সাথে জড়িত করতে উঠে পড়ে লেগেছে বলে জানান।

এ বিষয়ে হালুয়াঘাট থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা মো. মাহমুদল হাসান মুঠোফোনে জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছেন। এ ঘটনায় অত্র থানায় হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

%d bloggers like this: