হাফেজ ও হিজরাদের ঈদ উপহার সামগ্রী দিলেন ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ

0

প্রদীপ বিশ্বাস, ময়মনসিংহ:

পবিত্র মাহে রমজান। রমজানের সাথে জড়িত রয়েছে তারাবির নামাজ আদায়। যুগ যুগ আর বছরের পর বছরে ধরে কোরানে হাফেজগণ দেশের বিভিন্ন মসজিদে খতমে তারাবির মাধ্যমে সাধারণ মুসল্লীগণের নামাজ আদায়ে ইমামতি করে আসছে। মুসল্লীরাও তাদের পিছনে মনের আমেজে খতমে তারাবি আদায় করে আসছে। দেশের হাজারো কোরানে হাফেজ ইমামতির মাধ্যমে নামাজ আদায়ের পাশাপাশি যত সামান্য অর্থ ঐ সমস্ত মসজিদ কমিটির কাছ থেকে পেয়ে তাদের সংসার পরিচালনায় কিছুটা হলেও সহযোগীতা পেয়ে আসছিল। কোরানে হাফেজগণ খতমে তারাবির পাশাপাশি দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় দোয়া করে আসছিল। ব্যতিক্রম চলতি বছর। বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনার পাদুর্ভাবে করোনা সংক্রমনের আশংকায় সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও মসজিদে নামাজ আদায়ে মুসল্লীদের উপস্থিতি সংক্ষিপ্ত করা হয়। মসজিদে নামাজ আদায়ে মুসল্লীদের উপস্থিতি সরকারিভাবে বাধ্যবাধকতা থাকায় খতমে তারাবি আদায় হয়নি বললেই চলে। এতে দেশের হাজারো কোরানে হাফেজ তারাবি পড়ানো বঞ্চিত হন এবং এই সময়ে বেকার হয়ে অসহায় অবস্থায় পড়ে যান তারা। অনেকেই আর্থিকভাবে টানাপোড়ানে পড়ে যান। সংসার চালানো দায় হয়ে পড়ে। এদের বেশিরভাগ কোরানে হাফেজগণ মানুষের কাছে হাত পেতে কিছু নিতে না পেরে একেবারে কঠিন অবস্থায় সময় পার করছেন। ময়মনসিংহ জেলাও এর বাইরে নয়।
খতমে তারাবি পড়ানো থেকে বঞ্চিত ও বেকার হয়ে পড়া ময়মনসিংহের কোরানে হাফেজদের করুন পরিস্থিতির বিষয়টি চোখে পড়ে ময়মনসিংহের মানবিক পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামানের। করোনা মহামারির মধ্যে পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে এই সব অসহায় এবং আর্থিকভাবে অনটনে পড়া কোরানে হাফেজ এবং সংসারে থাকা অণ্যান্যদের মুখে হাসি ফুটাতে মানিবক পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামান এগিয়ে আসেন। পবিত্র ঈদুল ফিতরে ধর্মপ্রাণ এ সব কোরানে হাফেজ ও তাদের পরিবারের মুখে হাসি ফুটাতে পরিকল্পনা নেন। ময়মনসিংহে তারাবি পড়ানো বঞ্চিত হওয়ায় বেকার হয়ে পড়া এই সব কোরানে হাফেজদের খোজ খবর নেন। ডিবি পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দকে দায়িত্ব দিয়ে তাদের তালিকা তৈরী করেন। এক শত ৬০ জন কোরানে হাফেজদের তালিকা করে তাদের মাঝে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঈদ উপহার হিসাবে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
একই সাথে সমাজের তৃতীয় লিঙ্গ বা হিজরা সম্প্রদায়ও বর্তমান পরিস্থিতিতে একেবারে অসহায় হয়ে পড়ে। তালিকা করা হয় হিজরা সম্প্রদায়ের এক শত ২৬ জনের।
পুলিশ সুপারের নির্দেশে ২৩ মে, শনিবার সকালে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে কোরানে হাফেজদের ঈদ উপহার ও হিজরাদের খাদ্য সহায়তা বিতরণ করা হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পদোন্নতি প্রাপ্ত এস পি) হুমায়ুন কবির, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) শাহজাহান মিয়া, ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ এই ঈদ উপহার ও সামগ্রী বিতরণ করেন। এ সময় পুলিশ পরিদর্শক ফারুক আহমেদ, এসআই আনোয়ার হোসেন, দেবাশীষ সাহা সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

%d bloggers like this: