সরকারী রাস্তার গাছ বিক্রি প্রতিবাদে মানববন্ধন

0
শাহজহান কবির(গৌরীপুর) ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশ ব্যাপী ব্যাপক বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্যোগ নিয়েছেন। প্রতিদিন রোপন করা হচ্ছে হাজার হাজার গাছের ছারা। তবে চোরে না শোনে ধর্মের কাহিনী, মুজিববর্ষেই কতিপয় আওয়ামীলীগ নামধারী নেতা চুরি করে বিক্রি করছে সরকারি  রাস্তার গাছ। যার আনুমানিক মূল্য ৪লাখ টাকার বেশি। আর এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না প্রশাসন বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।এমনি চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহ গৌরীপুর উপজেলার ৩নং অচিন্তপুর ইউনিয়নে। নিয়মবহির্ভুতভাবে সরকারী গাছ বিক্রির প্রতিবাদে মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) শাহগঞ্জ বাজারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করছে স্থানীয় এলাকাবাসী। ইউনিয়ন আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক রানা আহম্মেদ কদ্দুসের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন অচিন্তপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মন্জুরুল হক, আওয়ামীলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন খোকন, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান টিঠু, ইউনিয়ন কৃষকলীগের সভাপতি কামাল হোসেন লিটন, সেচ্ছসেবকলীগের সভাপতি আশিক নুরী, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব প্রমুখ। বক্তারা অবিলম্বে দোষীদের বিচারের আওতায় না আনলে  আরো কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেন বক্তারা।
স্থানীয়রা জানায় উপজেলার গৌরীপুর টু রামপুর সড়কের অচিন্তপুর ইউনিয়নের গাগলা মোড় নামক স্থানের রাস্তার দু’পাশের বিভিন্ন প্রজাতির প্রায়  ২০-২৫ টি সরকারি গাছ কেটে বিক্রি করে দিয়েছেন ৩ নং অচিন্তপুর ইউনিয়নের  ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সোহেল মিয়া সহ তার সহযোগিরা।
মানববন্ধনে বক্তারা আরো বলেন, নির্মাণাধীন নতুন রাস্তা প্রসস্থ করনে গাছগুলো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে এ অজুহাতে বিনা টেন্ডারে ৭ আগষ্ট থেকে উল্লেখিত রাস্তার গাছ গুলো কাটা শুরু হয় এবং ৯ আগষ্ট সেগুলোর বড় টুকরা গুলো সড়িয়ে ফেলা হয় এমনকি গাছের গোড়াগুলি উঠানো হয়েছে । সোমবার সকাল থেকে ছোট ছোট টুকরো গুলো রাস্তার পাশ থেকে সড়িয়ে নেয়ার সময় তা স্থানীয়দের চোখে পড়ে। পরবর্তীতে পুলিশ ঘটনা জানতে পারে এবং গৌরীপুর থানার পুলিশ স্থানীয় একটি স’মিল থেকে কাটা গাছের অংশগুলো উদ্ধার ও সেগুলো জব্দ করে স মিলে রেখে যায়।
সরকারি গাছগুলো উদ্ধার করা স’মেইল মালিক ফজল ব্যাপারী জানান, গাছগুলো আমার স’মিলে  জয়নাল ও সোহেল রেখে গিয়েছিল, এছাড়া আমি আর কিছু জানি না।এ ব্যাপারে ইউনিয়ন অাওয়ামীলীগের  সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন জানান গাছ বিক্রি ও কাটার ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না, একটি মহল শুধুমাত্র রাজনৈতিক ভাবে আমার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য এ মিথ্যা অভিযোগ করেছে।
ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি সোহেল মিয়া জানান গাছ বিক্রির বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা, সরকারী গাছ আমি কিভাবে বিক্রি করব। গৌরীপুর উপজেলা প্রকৌশলী আবু সালেহ মোঃ আব্দুল ওয়াহেদ জানান- গাছগুলো এলজিইডি  রোপন করলেও এ রাস্তাটি এখন সড়ক ও জনপদের, তাই গাছের মালিকানাও তাদের। আমার জানামতে এ গাছগুলো কাটার ব্যাপারে সড়ক ও জনপদ কর্তৃপক্ষ অবগত নয়।এবিষয়ে  নেত্রকোনা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী হামিদুর রহমান জানান গাছ কর্তনের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে পুলিশ প্রসাশনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

%d bloggers like this: