Durnitibarta.com
ঢাকামঙ্গলবার , ৯ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আশুরাঃ করনীয় কি আর আমরা করছি কি ?

প্রতিবেদক
বার্তা বিভাগ
আগস্ট ৯, ২০২২ ৩:২৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

খাইরুল ইসলাম আল আমিনঃ

মহররমের ১০ তারিখ আশুরা। সে হিসেবে ৯ আগস্ট (মঙ্গলবার) পালিত হবে পবিত্র আশুরা। আশুরা উপলক্ষ্যে দেশবিদেশে অনেক আমল-উৎসব-আয়োজন পালিত হয়ে থাকে। আশুরায় রোজা পালন বিশুদ্ধ আমল হলেও নিষিদ্ধ অনেক রুসুম-রেওয়াজ প্রচলিত আছে। যা ইসলামে একেবারেই নিষিদ্ধ। কী সেসব আমল?

আশুরায় রোজা ও অন্যান্য সময়ের মতো নফল ইবাদত-বন্দেগি ছাড়া বিশেষ কোনো ইবাদত-বন্দেগি কিংবা রুসুম রেওয়াজের দিকনির্দেশনা নেই। আশুরা উপলক্ষে প্রচলিত যেসব কাজ ও ইবাদত সম্পর্কে ইসলামের নির্দেশনা নেই; বরং নিষিদ্ধ সেগুলো হলো-

১. আশুরা উপলক্ষ্যে নিজেদের শরীরকে চাকু, ব্লেড, ছুরি কিংবা লাঠির আঘাতে রক্তাক্তকরণ। এ বছর ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতাও নিজেদের শরীরকে রক্তাক্ত করার বিষয়টিকে হারাম ফতোয়া দিয়েছেন।

২. আশুরা উপলক্ষ্যে রণ-প্রস্তুতির মহড়া প্রদর্শন;

৩. আশুরা উপলক্ষ্যে আলোক-সজ্জা প্রদর্শন;

৪. আশুরা উপলক্ষ্যে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা।

৫. তাজিয়া মিছিল ও প্রদর্শনী করা।

৬. মর্সিয়া করা।

৭. মহররমে বিয়ে শাদি থেকে বিরত থাকা।

৮. আশুরা উপলক্ষ্যে নির্ধারিত নামাজ ও দোয়া পড়া।

বিশেষ করে

৯. আশুরা উপলক্ষ্যে বিশেষ বরকত পাওয়ার আশায় ঘরে ঘরে হালুয়া-রুটি বিতরণের রুসম-রেওয়াজ পালন করা। অনেকেই গরিব-অসহায়দের খাওয়ানোর দোহাই দিয়ে এটি জায়েজ বা বৈধ করার প্রচেষ্টা চালায়। মূলতঃ তা হয়না বললেই চলে। তবে পারাবারিকভাবে ঘরে ভালো খাবার আয়োজনের ব্যাপারে হাদিসের একটি বর্ণনা রয়েছে।

আশুরার দিনে যথাসাধ্য খাবারে প্রশস্ততা প্রদর্শন করা। যথাসম্ভব ভালো খাবার খাওয়া। হজরত আবদুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন, যে ব্যক্তি আশুরার দিনে পরিবারে প্রশস্ততা প্রদর্শন করবেসে সারা বছর প্রশস্ততায় থাকবে।’ (তাবরানিমুজামে কবির, বায়হাকি)

তারপরও আশুরা উপলক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী কিছু সংগঠন ও ব্যক্তি বিশেষ উল্লেখিত রুসুম রেওয়াজগুলো উদযাপন করে থাকেন। ইসলামি শরিয়তের দৃষ্টিকোন থেকে কিংবা কুরআন-সুন্নাহর দিকনির্দেশনা মোতাবেক এসবের কোনো সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা নেই।

মনে রাখতে হবে

আশুরা উপলক্ষ্যে রোজা রাখার ব্যাপারে রয়েছে হাদিসের সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা। তাছাড়া রোজা রাখার দিনক্ষণ সম্পর্কেও রয়েছে সুস্পষ্ট নির্দেশনা। আর তাহলো-

১. আশুরার নফল রোজা মহররম মাসের ১০ তারিখ পালন করা সুন্নাত। এ দিন রোজা পালনকারীর বিগত বছরের গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয় বলে ঘোষণা করেছেন স্বয়ং বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

২. সাহাবায়ে কেরাম যখন নবিজিকে জানালেন যে, ইহুদিরাও এ দিন আশুরা উপলক্ষ্যে রোজা পালন করেন। তখন বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছিলেন, তবে আমরা মহররমের নবমিতেও তথা ৯ তারিখও আমরা রোজা রাখব। সে হিসেবে ৯ ও ১০ মহররম রোজা রাখার নির্দেশনা দিয়েছে ইসলাম।

তবে ইহুদিদের অনুসরণ ও অনুকরণ থেকে নিজের বিরত রাখতে অনেকে নবমিতে রোজা রাখতে না পারলে আশুরার পরের দিন রোজা পালন করে থাকেন। আর তাতে দুইটি রোজা পালন করা হয।

সেক্ষেত্রে ৯ ও ১০ মহররম রোজা রাখলে হাদিসের সুস্পষ্ট নির্দেশনা পালন হয়ে যায়। আর ৯ তারিখ রোজা রাখতে না পারলে ১০ ও ১১ মহররম রোজা পালনের মাধ্যমে ইহুদিদের অনুসরণ থেকে বিরত থাকা যায়। আর এ কারণে অধিকাংশ ইসলামিক স্কলাররা আশুরার পরের দিন রোজা পালন করাকে বৈধ বলে মত দিয়েছেন। তবে উত্তম হলো ৯ ও ১০ মহররম রোজা পালন করা। কেউ কেউ আবার ৯-১১ মহররম এ তিনদিন রোজা পালনের পক্ষে মতামত ব্যক্ত করেছেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আশুরায় ইবাদত-বন্দেগি মনে করে রুসুম রেওয়াজ নিয়ে বাড়াবাড়ি করা থেকে নিজেদের বিরত রাখার পাশাপাশি হাদিসের নির্দেশনা মোতাবেক রোজা পালন করার তাওফিক দান করুন। শোহাদায়ে কারবালাসহ আশুরায় ঘটে যাওয়া সব ঘটনার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করা ও আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করার তাওফিক দান করুন। আমিন।