শেষ হল খালিয়াজুরীতে ধান – চাল সংগ্রহের অভিযান

0

মোঃ আবুল হোসেন, নেত্রকোণা :

মঙ্গলবার(১৫ই সেপ্টেম্বর) নেত্রকোণা জেলায় খালিয়াজুরী উপজেলার সরকারি খাদ্য গুদামে ধান – চাল সংগ্রহের শেষ দিন আজ। খালিয়াজুরী খাদ্য গুদামের oclsd দ্রিপায়ন দত্ত মজুমদার(ববি) আমাদেরকে জানান
সরকারী বিধি মোতোবেক অনুযায়ী খালিয়াজুরী খাদ্য গুদামে সরাসরি প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে  গত ১১.০৫.২০২০ইং থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ধান – চাল সংগ্রহ শুরু করে  ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ধান – চাল সংগ্রহের
অভিযান শেষ হয়।

তিনি আরো জানান এই ধানের মূল্য ছিল ২৬ টাকা কেজি ও চালের মূল্য ছিল ৩৬ টাকা কেজি। দু’দফায় ধান – চাল সংগ্রহ করা হয়।

প্রথম দফায় ধান সংগ্রহের লক্ষ মাত্রা ছিল ১৭৩৯ মেট্রিক টন এবং ২য় দফায়  ছিল ৫৮০ মেট্রিক টন।   সর্বমোট  ২৩১৯ মেট্রিক টন ধান ক্রয়ের লক্ষ মাত্রা ছিল। আর চাল সংগ্রহের লক্ষ মাত্রা ছিল ৯১১ মেট্রিক টন ।
কিন্তু বাস্তবে ধান সংগ্রহ করা হয়েছে ১৭৩৯ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হয়েছে ৪৫ মেট্রিক টন। দেখা যায় ৫৮০ মেট্রিক টন ধান এবং ৮৬৬ মেট্রিক টন চাল কৃষকরা খাদ্য গুদামে দিতে পারে নাই।

কিন্তু কেন? কৃষকদের হাতে ধান নেই , নাকি অন্য কোনো সমস্যা?

এই সম্পর্কে ছিখাইয়ের কৃষক খেলু মিয়া(৫৫) বলেন, আমার কিছু ধান গুদামে দিছি আর বাকি ধান আমার বাড়িতে বিক্রি করছি। কিন্তু গুদামের  চেয়ে বাড়িতে ভালো দরে বেচতা পারছি।
কৃষকদের পক্ষ থেকে আমি খেলু মিয়া(গছিখাই) সরকারের কাছে আবেদন জানাই, বাইরের বাজার থাইক্কা গুদামের দাম বেশি হলে আমরা উপকৃত হতাম।

খালিয়াজুরী সদরের কৃষক বিভূ ভৈামিক(৭০) বলেন, খাদ্য গুদামে সরকার ধান -চাল ক্রয় করার জন্য যে দর দিয়েছেন বাহিরের বাজারে সমপরিমাণ বা এর চেয়ে বেশি দরে
ধান – চাল বিক্রি করতে পারি। তিনি আরো বলেন, গুদামে ধান দেওয়া বড় ভেজাল আর খরচও বেশি এর লাগিন সব মিলিয়ে আমরার পোষায় না।

%d bloggers like this: