শাকিব নিয়ে চক্করে মিডিয়াকর্মীরা

0

বিনোদন ডেস্ক:

ঘড়িতে তখন রাত সাড়ে ১০টা। মুঠোফোনটা বেজে উঠল। সহকর্মীর ফোন। রিসিভ করতেই ঝটপট জানিয়ে দিলেন, ‘আগামীকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টায় গুলশান ২-এর হোটেল ওয়েস্টিনে নায়ক শাকিব খানের সংবাদ সম্মেলন। ঠিক ১১টায় ওখানে চলে আসবেন।’

মিডিয়াতে এটা তখন গরম খবর। কারণ সোমবার বিকেলের পর থেকে অপু-শাকিব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও মিডিয়া জুড়ে দখল করে আছেন। দীর্ঘদিনের নীরবতা ভেঙে নায়িকা অপু নিউজ ২৪ টিভি চ্যানেলে সরাসরি সাক্ষাৎকারে দাবি করেন, নায়ক সাকিব খান তার স্বামী, কোলের শিশুটি তাদের ছেলে। এখন শাকিবের ভাষ্য কী।

সন্ধ্যায় ল্যাপটপ ওপেন করেছি মাত্র। ফেসবুকে ঢুকতেই দেখি আমার টাইম লাইনে যমুনা টেলিভিশনের নয়ন মুরাদ ভাইয়ের একটি সচিত্র স্ট্যাটাস। ছবিটি মোবাইল দিয়ে তোলা বেসরকারি টেলিভিশন নিউজ টোয়েন্টিফোরে প্রচারিত একটি এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারের স্থিরচিত্র। অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস এবং তার কোলে ফুটফুটে একটি শিশু।

এর পরপরই আমার এক সহকর্মী বোরহান উদ্দিন ভাইয়ের টাইমলাইনে ছবিসহ লেখা- ‘ব্রেকিং নিউজ, ঢাকাটাইমস। নায়িকা অপু বিশ্বাস তার সন্তানকে নিয়ে টিভি অনুষ্ঠানে এসেছেন। জানিয়েছেন, তার সন্তানের বাবা নায়ক শাকিব খান। সন্তানের নাম আবরাম খান জয়। বিস্তারিত আসছে….’।

দ্রুত চ্যানেল টোয়েন্টিফোরে ঢুকে দেখি লাইভ চলছে। অপু বিশ্বাস কথা বলছেন এবং মাঝে মাঝে কেঁদে ফেলছেন। সঞ্চালকের কথার উত্তর দিচ্ছেন আর টিস্যু বক্স থেকে মাঝে মাঝে টিস্যু নিয়ে চোখ মুছছেন। পুরো সময়ের সাক্ষাৎকারটি মনোযোগ দিয়ে দেখলাম। এরপর আবার ফেসবুকে ঢুকলাম। একের পর এক স্ট্যাটাস আসছে নানা জনের। কেউ অপুর প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছেন। বাচ্চাটি শাকিব খানের মতো হয়েছে, কিউট বাচ্চা ইত্যাদি মন্তব্য করছেন কেউ কেউ। শাকিব খানের প্রতি গালমন্দের বর্ষণও চলছে সমানতালে।

আমি নিজেও ফেসবুক থেকে ছবি আপলোড করে স্ট্যাটাস দিলাম। সেখানেও অনেকে অনেক রকম মন্তব্য করেছেন। এভাবেই চলতে থাকল শাকিব-অপু উপাখ্যান।

তবে সবার মধ্যে একটা বড় কৌতূহল ছিল- শাকিবের বক্তব্য জানার। কী বলছেন শাকিব, কিংবা কী বলবেন তিনি। একটি মিডিয়ায় খবর আসে- শাকিব ছেলের দায়িত্ব নেবেন, কিন্তু অপুকে নেবেন না।

আরো পরে শাকিবের বরাদ দিয়ে মিডিয়ায় প্রচার হয়- নিজের বক্তব্য জানানোর জন্য গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন শাকিব।

সকালে যথারীতি রওনা করলাম গুলশান ২-এ। যদিও ইতিমধ্যে কয়েকটি গণমাধ্যমে শাকিব সংবাদ সম্মেলনের কথা অস্বীকার করেন, তবে এটা উটকো জনসমাগম এড়ানোর কৌশল বলে মনে হয় গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে। ১১টা থেকে অনেক ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইন গণমাধ্যম সাংবাদিকরা ক্যামেরা-বুম হাতে হোটেল ওয়েস্টিনের সামনে অপেক্ষা করতে থাকেন। কেউ কেউ ফোনে শাকিবের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেন। কিন্তু তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। অপুর সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো ফল হয় না।

বেলা গড়িয়ে দুপুর হতে চলে। এ সময় কেউ কেউ জানতে পারেন, শাকিব খান তখন অপু বিশ্বাসের বাসায়। দে ছুট নিকেতনের দিকে। আমরা মোটরবাইকে। একদল সংবাদকর্মী গিয়ে পৌঁছাই অপুর বাসার সামনে। সেখানেও আগে থেকে গণমাধ্যমকর্মীদের ভিড়। কিন্তু হতাশ সবাই। অপু বিশ্বাস নাকি বাসায় নেই। আবার কেউ বলছেন, ‘আমার সাথে কথা হয়েছে তিনি সবে ঘুম থেকে উঠেছেন। এবং বলেছেন শাকিব খান তাকে ফোন কিংবা এসএমএস কিছুই করেননি।’

আবার কেউ বলছেন, মিনিট চল্লিশেক আগে অপু বিশ্বাস বাসা থেকে বের হয়ে গেছেন। নানা মুখে নানা কথা। নানা গুঞ্জন। কোনটা সঠিক আর কোনটা সঠিক নয়, শাকিবকে নিয়ে চক্করে পড়ে যান সংবাদকর্মীরা। এদিকে অফিস থেকে তাড়া আপডেট জানাতে। কী আপডেট জানাব, শাকিবেরই তো দেখা নেই। তবু অপেক্ষা চলে। এতক্ষণে জানা হয়ে গেছে শাকিব আজ আর গণমাধ্যমের সামনে আসবেন না। ঘণ্টা খানেক সময় ব্যয় করে অগত্যা অফিসে ফিরে আসা।

প্রায় এক বছর আড়ালে থাকার পর গতকাল সোমবার বিকালে সরাসরি সাক্ষাৎকারে অপু বলেন, শাকিবের সঙ্গে ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল বিয়ে হয় তার। বিয়ের আগে তার নাম বদলে রাখা হয়, অপু ইসলাম খান। তাদের ছেলের জন্ম হয় ভারতের কলকাতার একটি হাসপাতালে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর।

কিন্তু শাকিবের ক্যারিয়ারের কথা ভেবে বিয়ে ও সন্তানের খবর গোপন রাখেন তারা। কিন্তু এখন সন্তানের প্রয়োজনে বাধ্য হয়ে তা প্রকাশ করেন।

%d bloggers like this: