মুক্তাগাছায় পুলিশের মানবিকতায় মায়ের কোল ফিরে পেল শিশু

0

মোঃ আনিসুর রহমানঃ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থানা পুলিশের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দশ মাসের শিশু জিহাদ ফিরে পেল তার মায়ের কোল। মুক্তাগাছা উপজেলার মাইনকোন ইউনিয়নের কদুরবাড়ী গ্রামের নাজমুল হাসান ও সুফিয়া আক্তারের সংসার আলোকিত করে জন্ম নেয় পুত্র সন্তান জিহাদ। জিহাদের বয়স দশ মাস। সুখেই কাটছিলো তাদের সংসার। কিছু দিন যাবৎ সাংসারিক বিষয় নিয়ে রোজী রোজগার না করায় নাজমুল হাসান তার স্ত্রী সুফিয়ার আক্তারের সাথে ঝগড়া বিবাদ লেগে রয়েছে । গত মঙ্গলবার আবারো নাজমুল হাসান ও তার স্ত্রী সুফিয়া আক্তাররের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ শুরু হয়।

এতে স্ত্রী সুফিয়া আক্তার তার বাপের বাড়ী চলে যাওয়ার কথা বলে। তখন স্বামী নাজমুল হাসান তার সন্তানকে রেখে চলে যেতে বলে এবং ঝগড়ার এক পর্যায়ে দুপুর ১ টায় দশ মাসের অবুঝ ছেলে সন্তান জিহাদকে কেড়ে নিয়ে তাকে বাড়ী থেকে বেড় করে দেয়। সুফিয়া চেষ্টা করেও সন্তান জিহাদকে নিতে না পেরে সবশেষে মুক্তাগাছা থানা পুলিশের সাহায্য নেন এবং দশ মাসের কোলের শিশুকে কেড়ে নেয়ার বিষয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মুক্তাগাছা থানায় স্বামী নাজমুল হাসানের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করেন। দশ মাসের শিশু বাচ্চার কথা শুনে মুক্তাগাছা থানার ওসি বিপ্লব কুমার বিশ্বাস থানার এএসআই জাহাঙ্গীর আলমকে বাচ্চাটি উদ্ধার করে তার কোলে ফিরিয়ে দিতে ব্যবস্হা গ্রহনের নির্দেশ দেন।

এএসআই জাহাঙ্গীর আলম তার সঙ্গীয় ফোর্সদের নিয়ে ঘটনাস্হলে যান।তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দশ মাসের শিশুকে উদ্ধার করে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেন। এব্যাপারে মুক্তাগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন,অভিযোগটি পাওয়ার পর দশ বাচ্চার কথা শুনে মানবিক দিক বিবেচনা করে এএসআই জাহাঙ্গীর আলমকে দায়িত্ব প্রদান করি শিশু সন্তানটিকে উদ্ধার করে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে এবং এএসআই জাহাঙ্গীর আলম খুব দ্রæত সময়ের মধ্যে মানবিকতার সাথে তার দায়িত্ব পালন করত বাচ্চাটিকে উদ্ধার করে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেন।

বাচ্চাটিকে কাছে পেয়ে সুফিয়া খুব খুশি হন এবং তার চোখে মুখে আনন্দের হাসি ফুটে ওঠে। আর সন্তানকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে পারাটাই আমাদের স্বার্থকতা। এছাড়াও মানবিকতার সাথে নিজের দায়িত্ব পালন করায় এএসআই জাহাঙ্গীর আলমসহ তার সাথে থাকা পুলিশ সদস্যদের ধন্যবাদ জানান বিপ্লব কুমার বিশ্বাস।

%d bloggers like this: