ভ্যাকসিনের আগেই করোনা মুক্তির উপায় আবিষ্কার!

0

করোনাভাইরাসের থাবায় ক্ষতবিক্ষত গোটা বিশ্বের মানুষের এখন একটাই চাওয়া তা হলো ভ্যাকসিন। করোনার টিকা তৈরিতে দিনরাত এক করে চলেছেন গোটা বিশ্বের বিজ্ঞানীরা। কিন্তু সেটাও সময়সাপেক্ষ। কবে ভ্যাকসিন আসবে, কবে মানুষকে সুস্থ করবে তার ঠিক নেই। কিন্তু এরই মধ্যে ভ্যাকসিনের জন্য অপেক্ষা না করে অ্যান্টিবডি তৈরির মাধ্যমে সেটা মানবদেহে প্রয়োগ করলে করোনা থেকে মুক্তি মিলবে বলে বলছেন বিজ্ঞানীরা। আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার সান ডিয়াগোর বিজ্ঞানীরা এরই মধ্যে গবেষণা শুরু করেছেন।

আমেরিকার শীর্ষ সংক্রমক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসি বলছেন শরীরে অ্যান্টিবডি প্রয়োগের মাধ্যমে করোনা মোকাবেলায় সফলতা আসবেই। যখন ভাইরাস শরীরে আক্রমণ করে তখন কিছু লক্ষণ দেখা দেয়। শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হলে এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে পারে। অ্যান্টিবডি ভাইরাস না ছড়াতে পারে সে বিষয়টি প্রতিরোধ করে।

করোনায় অ্যান্টিবডির আসল কাজ কী এ নিয়ে এখনো গবেষণা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। তবে এই বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানিগুলোও। তাদের মতে অ্যান্টিবডির মাধ্যমেই করোনা প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

রেজনারন ফার্মাসিউটিক্যালসের নির্বাহী ক্রিস্টোস কেরাটস রয়টার্সকে জানান, অ্যান্টিবডি সংক্রমণ আটকাতে পারে। রিজেরন দুটি অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করেছেন, তিনি বিশ্বাস করেন যে, একটির চেয়ে আরেকটার ক্ষমতা ভালো। তবে সময়ের সাথে সাথে এর সুরক্ষা হ্রাস পাবে।

তবে একটি অ্যান্টিবডি নাকি দুটি অ্যান্টিবডি করোনা মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এই নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। এরই মধ্যে মানবদেহে ডুয়েল অ্যান্টিবডির ট্রায়ালের কথা ভাবছে অ্যাস্ট্রাজেনেকো।

ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানিগুলো বলছেন, অ্যান্টিবডি চিকিৎসা ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের মধ্যে অস্থায়ীভাবে সংক্রমণ রোধ করতে পারে। ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত এগুলো থেরাপিউটিক হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

%d bloggers like this: