ঢাকা ২৮.৯৯°সে ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
শিরোনাম :
প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে ‘মসিক’এ শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব মহানবমীতে পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করলেন মসিক -মেয়র ইকরামুল হক টিটু নৌকার মাঝি হয়ে হরিনচড়া ইউনিয়নবাসীর সেবা করতে চান রাসেল রানা ডোমারে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা  দুধের শিশু কোলে নিয়ে ট্রেনের নিচে মায়ের ঝাঁপ মুক্তাগাছায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও ঐতিহ্য রক্ষা করে পূজা উদযাপন শিশু তামিমের হাতে বই-খাতা বদলে ঘাড়ে ৬ সদস্যদের পরিবারের দায়িত্ব হালুয়াঘাটে আজ দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত ডোমারে নবাগত উপজেলা সমবায় অফিসার এর সাথে বসুন্ধরা সমিতির সৌজন্য সাক্ষাৎ হালুয়াঘাটে ইউপি চেয়ারম্যান সুমনের অশ্লীল ভিডিও ফাঁস

সমাজের বিত্তবানদের প্রতি প্রতিবন্ধি রিপনের আবেদন

বিশেষ প্রতিনিধি :

পা তার থেকেও নেই, হাতের উপর ভর করে চলতে হয়। ৩০টি বছর ধরেই সে হাতের উপর ভর করে চলছে। আর কোন দিন পায়ের ওপর ভর করে দাঁড়াতে পারবে না। বিভিন্ন হাট বাজারে দেখা যায় তাকে হাতের উপর ভর করে হাটছে আর মানুষের কাছে সাহায্য চাইছে। তার সাথে বলে জানা যায় তার নাম রিপন মিয়া।
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের হারুয়া গ্রামের আবদুর রহমানের ছেলে ।
বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, হারুয়া গ্রামে একটি জির্ণশির্ণ ঘরে স্ত্রী সন্তান নিয়ে পাঁচ জন মিলে বসবাস করে। রিপনের সংসারে দুই ছেলে এক মেয়ে রয়েছে।

সন্তানদের লিখাপড়া খরচসহ সংসারে উপার্জনকারী একমাত্র রিপণ মিয়া। নেই তার অর্থ সম্পত্তি।পৈত্রিক সম্পত্তি হিসেবে রয়েছে পাঁচ শতক জমি। যেখানে ছয় ভাই মিলে বসবাস করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তার বয়স যখন আনুমানিক ছয়-সাত বছর তখন টাইফয়েড রোগে তার পা দুটি অবস হয়ে যায়। চলাচল করার জন্য অর্থের অভাবে চলার মত কোন যান কিনতে না পেড়ে দু হাতে ভর দিয়ে চলাফেরা করেন তিনি। ছোটকাল থেকে এভাবে তিনি বেড়ে উঠেন। হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান মোঃ রিপন মিয়া ছোট বেলা থেকেই ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। কিন্তু সারাদিন দিন ভিক্ষা করে তাতে সংসারের তিন বেলা লবন ভাতই জুটে না।

রিপন জানায়, বিভিন্ন গ্রামে, হাটে বাজারে ঘুরে সারা দিন ভিক্ষা করে যে টাকা উপার্জন করি তার প্রায় অর্ধেকেই চলে যায় রিক্সা ভাড়ায়।

পরে এই সামান্য টাকা দিয়ে সংসার চালানো অনেক কষ্টকর।আজ যদি আমার নিজের একটি গাড়ি থাকতো তাহলে রিক্সা ভাড়ার টাকাটা আমার থেকে যেতো।

আর এই টাকাটা আমার সংসারের জন্য অনেককিছু।একটি রিক্সার দাম ১৫/২০ হাজার টাকা। আমার মত ব্যক্তির দ্বারা নিজ উপার্জনে রিক্সা কিনা সম্ভব না। সমাজের বিত্তবানরা যদি আমর দিকে একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় তাহলেই সম্ভব।




আপনার মতামত লিখুন :

এক ক্লিকে বিভাগের খবর


x