বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর মৃত্যু, বান্ধবী নেহা রিমান্ডে

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজধানীর উত্তরার একটি রেস্টুরেন্টে বন্ধুদের সঙ্গে মদপানের পর অসুস্থ হয়ে রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী মারা যাওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার তার বান্ধবী ফারজানা জামান নেহার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

শুক্রবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট সত্যব্রত শিকদার এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামিকে হাজির করে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করে। শুনানি শেষে বিচারক পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর আজিমপুর এলাকার একটি বাসা থেকে নেহাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। নিহত শিক্ষার্থীর বাবার করা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিনি এজাহারভুক্ত আসামি।

এর আগে এই মামলার অন্য দুই আসামি মর্তুজা রায়হান চৌধুরী ও নুহাত আলম তাফসীরকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

মারা যাওয়া ছাত্রীর বাবা গত ৩১ জানুয়ারি মোহাম্মদপুর থানায় ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেন। সেই মামলার এজাহারে তিনি দাবি করেন, গত ২৮ জানুয়ারি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী (বাদীর মেয়ে) মিরপুর থেকে লালমাটিয়ায় তার বন্ধু আরাফাতের কাছে আসেন। এরপর আসামি মর্তুজা রায়হান চৌধুরী ও আরাফাত ওই শিক্ষার্থীকে নিয়ে উত্তরায় একটি রেস্টুরেন্টে যান। আগে থেকে ওই রেস্টুরেন্টে অবস্থান করা ওই শিক্ষার্থীর বান্ধবী নেহা ও অজ্ঞাত একজন ব্যক্তিসহ অন্য আসামিরা ওই শিক্ষার্থীকে অধিক মাত্রায় মদ পান করান। তখন ওই শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়লে সেখান থেকে মোহাম্মদপুরে নুহাত আলম তাফসীরের বাসায় আসেন। সেখানে আসামি মর্তুজা রায়হান চৌধুরী ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করেন। পরে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে ওই শিক্ষার্থীকে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৩১ জানুয়ারি তার মৃত্যু হয়।

মোহাম্মদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল লতিফ বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মামলার একজন আসামি আরাফাত মারা গেছেন। বিষয়টি আদালতকে জানানো হয়েছে।