ঢাকা ২৭.৯৯°সে ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
শিরোনাম :
প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে ‘মসিক’এ শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব মহানবমীতে পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করলেন মসিক -মেয়র ইকরামুল হক টিটু নৌকার মাঝি হয়ে হরিনচড়া ইউনিয়নবাসীর সেবা করতে চান রাসেল রানা ডোমারে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা  দুধের শিশু কোলে নিয়ে ট্রেনের নিচে মায়ের ঝাঁপ মুক্তাগাছায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও ঐতিহ্য রক্ষা করে পূজা উদযাপন শিশু তামিমের হাতে বই-খাতা বদলে ঘাড়ে ৬ সদস্যদের পরিবারের দায়িত্ব হালুয়াঘাটে আজ দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত ডোমারে নবাগত উপজেলা সমবায় অফিসার এর সাথে বসুন্ধরা সমিতির সৌজন্য সাক্ষাৎ হালুয়াঘাটে ইউপি চেয়ারম্যান সুমনের অশ্লীল ভিডিও ফাঁস

বিয়ের আগে রক্তের যেসব পরীক্ষা জরুরি

ফিচার ডেস্ক :

বিয়ের পর কীভাবে ঘর সাজাবেন, কোথায় ঘুরতে যাবেন সব পরিকল্পনা থাকলেও বিয়ের পর সুস্থ জীবন নিয়ে অনেকেই আগে ভাবেন না। তবে এখন সচেতন মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। বিয়ের আগে পাত্র-পাত্রীর জরুরি কিছু পরীক্ষা করানো উচিত। যা পরবর্তী জীবনকে সুস্থ রাখবে এবং সমস্যা থাকলে আগে থেকেই তা সমাধান করা যাবে। চলুন তেমন কয়েকটি পরীক্ষা সম্পর্কে জেনে নিই।

থ্যালাসেমিয়া

প্রি ম্যারিটাল চেক আপের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল হিমোগ্লোবিন ইলেকট্রোফোরেসিস পরীক্ষা। এই পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যায় যে থ্যালাসেমিয়া আছে কি না। দুজনেই এই পরীক্ষা করিয়ে নিতে পারলে ভালো। স্বামী বা স্ত্রী কেউ যদি থ্যালাসেমিয়ার বাহক হন তাহলে তাদের সন্তানেরও থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থেকে যায়।

ইনফার্টিলিটি পরীক্ষা

লাইফস্টাইলের পরিবর্তনের কারণে এখন ছেলে এবং মেয়ে উভয়ই নানারকম সমস্যায় ভোগেন। দীর্ঘক্ষণ ল্যাপটপের সামনে সময় কাটানোর জন্য ছেলেদের দৃষ্টিশক্তির সমস্যার সঙ্গে তৈরি হচ্ছে শারীরিক সমস্যাও। তেমনই কমছে স্পার্ম কাউন্ট। মেয়েদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা আরও অনেক বেশি। কারণ বেশিরভাগ মেয়েই পিসিওডি এর সমস্যায় ভুগছেন। নিয়মিত হরমোনের ওষুধও খান। এছাড়াও থাকে আরও নানা সমস্যা। পরে সন্তান ধারণে অসুবিধে হয়। তার আগে থেকে এই পরীক্ষা করে নিজেদের সক্ষমতা যাচাই করা উচিত।

রক্ত পরীক্ষা

হবু বর ও কনে দুজনেরই একটা ফুল বডি চেক আপ করিয়ে নেওয়া প্রয়োজন। ডায়াবেটিস, ট্রাইগ্লিসারাইড, কোলেস্টেরল, থাইরয়েড ইত্যাদি। তাহলে নিজেরাও প্রথম থেকে খাওয়া দাওয়ার ব্যাপারেও সচেতন থাকতে পারবেন। এছাড়াও দুজনের রক্তের গ্রুপ যাতে এক না হয় সেটাও পরীক্ষা করে জানা জরুরি। একই রক্তের গ্রুপের দুইজন তার প্রভাব সন্তানের ওপর পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

জিনগত সমস্যা

অনেকেরই জিনগত বা বংশগত বিভিন্ন অসুখ থাকে। আর তাই যদি পরিবারের ইতিহাসে জটিল কোনো রোগের সম্ভাবনা থাকে তাহলে আগে থেকেই পরীক্ষা করান। বিশেষত হার্টের সমস্যা। অনেকেই প্রথম থেকে এই বিষয়টি নিয়ে সচেতন নন। মনে মনে সকলেই নিজেকে ফিট ভাবেন।

এসটিডি পরীক্ষা

সকলকেই যে এই পরীক্ষা করতে হবে এমনটা নয়। যদি দেখাশোনা করে বিয়ে হয় এবং সঙ্গীর সঙ্গে মেশার পর যদি আপনার মনে হয় তার যৌন কোনো সমস্যা রয়েছে তাহলে এই পরীক্ষা অবশ্যই করান। বিয়েতে মনের মিলনের পাশাপাশি শারীরিক সুখেরও প্রয়োজন রয়েছে।




আপনার মতামত লিখুন :

এক ক্লিকে বিভাগের খবর


x