পুলিশ ও সাংবাদিকতা পেশায় চমৎকার মিল রয়েছে; – ড. মোঃ আক্কাছ উদ্দিন ভূঁইয়া

0

গোলাম কিবরিয়া পলাশ  , ময়মনসিংহ :

ময়মনসিংহে বাংলাদেশ তৃণমূল সাংবাদিক কল্যাণ সোসাইটি’র পরিচিতি সভা-২০২০ অনুষ্ঠিত হয়েছে‌। মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে ময়মনসিংহ নগরীর ঐতিহ্যবাহী ডি এস কামিল মাদরাসা হলরুমে ময়মনসিংহ জেলা কমিটি’র এ পরিচিতি সভার আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশ তৃণমূল সাংবাদিক কল্যাণ সোসাইটি’র ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি তারেক সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের উদ্বোধক হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ তৃণমূল সাংবাদিক কল্যাণ সোসাইটি’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মীর মো. সিরাজুল ইসলাম। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত ডিআইজি ময়মনসিংহ রেঞ্জের ড. মো. আক্কাছ উদ্দিন ভূঁইয়া। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দৈনিক ময়মনসিংহ প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক এবং বাংলাদেশ তৃণমূল সাংবাদিক কল্যাণ সোসাইটি’র উপদেষ্টা ড. ইদ্রিছ খান ও ডা. মো. মুস্তাফিজুর রহমান।

মীর মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আগমী জানুয়ারীতে দেশের প্রতিটি জেলায় জমকালোভাবে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করার আহ্বান জানান। প্রত্যেক জেলা কমিটির সমন্বয়ে সাস্থ্য বিধি মেনে সুন্দর পরিবেশে অনুষ্ঠান করার নির্দেশনাও দেন তিনি।’

ড. মো. আক্কাছ উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘বাংলাদেশ তৃণমূল সাংবাদিক কল্যাণ সোসাইটি সংগঠনটি আমার পছন্দের, এ সংগঠনটি তৃণমূল সাংবাদিকদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে শুনে আমি খুশি হয়েছি। সত্যনিষ্ঠ সাংবাদিকরা সমাজ ও জাতির বিবেক। সাংবাদিকদের বস্তুনিষ্ঠ, সত্য, তথ্যনির্ভর সংবাদ পরিবেশন করে দেশের কল্যাণে কাজ করতে হবে। দেশের স্বার্থ পরিপন্থী সংবাদ বর্জন করতে হবে। সাংবাদিকতায় দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। সাংবাদিকরা ইচ্ছা করলে সব অসঙ্গতি দূর করতে পারেন। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সাংবাদিকরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন।

গণমাধ্যমের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করে তিনি বলেন, মন্ত্রণালয় ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমের ত্রুটি-বিচ্যুতি সম্পর্কে নীতি-নির্ধারকদের জানানোর জন্য গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন করা হয়। সঠিক তথ্যনির্ভর ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করা হলে অবশ্যই তার আলোকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। এছাড়াও তিনি বলেন, পুলিশ ও সাংবাদিকতা পেশায় চমৎকার মিল রয়েছে। সুনামে, দুর্নামে, কাজের ধরনে ও করণে পেশা দুটি মিলে যেন একাকার।

তিনি আরও বলেন, জানা কথা, রাষ্ট্র ব্যবস্থার চারটি স্তম্ভ রয়েছে। আইনবিভাগ, বিচারবিভাগ, নির্বাহীবিভাগ ও সংবাদপত্র। সংবাদপত্রকে বলা হয় রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বা ফোরথ এস্টেট। রাষ্ট্রের ফোরথ এস্টেট বা চার নম্বর খুঁটিটা দাঁড় করিয়ে রাখতে তথ্য শক্তি দিয়ে দায়িত্ব পালনে ভূমিকা রাখছেন সাংবাদিকরা।’

ড. মো. ইদ্রিছ খান বলেন, ‘এই সংগঠন সমগ্র বাংলাদেশে সারা জাগিয়েছে। যা তৃণমূল সাংবাদিকদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। সাংবাদিকরা আজ বিভিন্নভাবে নির্যাতিত হচ্ছে তা প্রতিহিত করার জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এই তৃনমূল সংগঠনটিতে ময়মনসিংহে সুচনালগ্ন থেকে সম্পৃক্ত আছি। আগামি দিনগুলোতে সংগঠনকে তরানিত্ব ও গতিশীল করার লক্ষে সংগঠনের পাশে থাকার আশা ব্যক্ত করেন। উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ তৃণমূল সাংবাদিক কল্যণ সোসাইটি এর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া পলাশ ও অর্থ সম্পাদক মুশিদুল আলম। সঞ্চালনায় ছিলেন, ময়মনসিংহ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ও জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শামীম হোসাইন।

এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মাজাহারুল হক, যুগ্ন সধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান স্বপন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াকুব আলী, অর্থ সম্পাদক এনমুল হক, দপ্তর সম্পাদক আবুল বাশার লিংকন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মো. নূরে আলম পূর্ণ চৌধুরী, সাহিত্য সম্পাদক তাইজুল ইসলাম জুয়েল, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মতিন মাসুদ।

এছাড়াও জেলা কমিটির সদস্য হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, সালাউদ্দীন উজ্জল, শহিদুল ইসলাম, রুবেল মিয়া, আবুল হাসানাত রাতুল, আশিকুজ্জামান মিজান, জাকির হোসেন পলাশ, আকরাম হোসেন, রমজান আলী ও আজিজুল হক প্রমুখ।

এছাড়াও জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ময়মনসিংহ জেলা কমিটির পরিচিত সভা শেষে সকল নেতৃবৃন্দের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিবৃন্দ। পরে মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি করা হয়।

%d bloggers like this: