loading...

ধন্যবাদ ইউএনও উম্মে রুমানা তুয়া ম্যাডাম ও ঈশ্বরগঞ্জ পরিবার

0

বিশেষ প্রতিবেদকঃ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের কুল্লাপাড়া ও নিজগাও গ্রামের প্রায় সহস্রাধিক মানুষ দীর্ঘদিন ধরে বিশুদ্ধ পানিয় জলের দুর্ভোগ পোহাচ্ছিল। পানিয় জলের সঙ্কট নিরসনের জন্য সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসী জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ধর্না দিয়েও একটি নলকূপ স্থাপন করতে পারেনি।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইচবুক গ্রুপের একটি সামাজিক উন্নয় মূলক সংগঠন ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারের একটি কমেন্টে বিশুদ্ধ পানিয় জলের তীব্র সঙ্কট নিরসন করার দাবি তুললে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নজরে আসে।

পরে তিনি উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের এলজিএসপি প্রকল্পের অর্থায়নে গত ২৭ সেপ্টেম্বর নিজগাও গ্রামের আব্দুল আজিজের বাড়িতে একটি নলকূপ স্থাপন করে দেন। এতে কুল্লাপাড়া ও নিজগাও গ্রামের প্রায় সহস্রাধিক মানুষ বিশুদ্ধ পানিয় জলের দুর্ভোগ থেকে রেহাই পেল।

ভুক্তভোগী আমির হামজা নলকূপ পাওয়ার পরে ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে একটি পোষ্ট করেন, পোষ্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

মাইজবাগ ইউনিয়নের নিজগাও গ্রামের শিশু বৃদ্ধা সহ আশ-পাশের ১ কিলোমিটার এলাকা বাসী দীর্ঘ দিন যাবৎ বিশুদ্ধ পানি সংকটে ছিলেন। আমিও নিজেও ভুক্তভোগী ছিলাম। ফেসবুকে ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারের বিভিন্ন সমাজ কল্যাণ মুলক কাজের প্রচারনা দেখি এবং ইউএনও ম্যামের বিভিন্ন কার্যক্রম ঈশ্বরগঞ্জ পরিবার গ্রুপে দেখি উনি সবার থেকে আলাদা ভাবেই কাজ করছে আলোকিত ঈশ্বরগঞ্জ গঠনের লক্ষ্যে। তারপর আমি সাহস পাই যে উনার কাছেই গেলে হয়তো একটা ব্যবস্হা হবে। জানতে পারলাম ইউএনও ঈশ্বরগঞ্জ উম্মে রুমানা তুয়া ম্যাডামের কাছে সকল সমস্যার সমাধান পাওয়া যায়। সেই সুবাদে অামিও ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারের একটি পোস্টে আমার সমস্যা টি কমেন্টে জানাই। কমেন্ট দেখে ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারের এডমিন শ্রাবণ ভাই মডারেটর ঈসাক ভাইয়ের সাথে কথা বলতে বলেন। তারপর ঈসাক ভাই ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারের এডমিন পারভেজ ভুইঁয়া ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ করিয়ে দেন। পারভেজ ভুইঁয়া ভাই কে সমস্যার কথা বলার পর উনি ইউএনও ম্যাডামের সাথে কথা বলে আমাকে জানায় সোমবারে ইউএনও অফিসে যাওয়ার জন্য। ইউএনও ম্যাডামের কাছে যাওয়ার পর ম্যাডাম আমার সামনেই একজন কে ফোনে বলেন আমার একটি নলকূপ লাগবে। তারপর ম্যাডাম আমাকে বলেন অাপনার ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি রেখে যান। যে ঠিকানায় নলকূপ টি যাবে।এর কিছু দিন পর হঠাৎ ইউএনও ম্যাডাম আমাকে ম্যাসেজ দিয়ে জানান আপনার নলকূপ টি আপনার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাহেবের কাছে পৌছে গেছে এসে নিয়ে যান। আমি অনেক আশ্চর্য হয়ে যাই এই যুগে এভাবে এতে সহজে কাজ হয়ে গেলো!! যেখানে গত ১০ বছর যাবৎ বিভিন্ন জনপ্রতিনিধির দ্বারে দ্বারে ঘুরে কাজ হয়নি সেখানে এতো সহজেই হয়ে গেলো। এমনকি কেউ কেউ নলকূপ দেওয়ার বিনিময়ে টাকা চেয়েছিলেন ৮/১০ হাজার। আমি সবাইকে না করি দূর্নীতি কে সুযোগ দিয়ে নয় একদিন মহান আল্লাহ ঠিকই ব্যবস্থা করে দিবেন। ইউএনও উম্মে রুমানা তুয়া ম্যাডামের জন্য অন্তরের অন্তস্তল থেকে অনেক অনেক দোয়া করি অামরা এলাকাবাসীরা। এতো গুলো মানুষের এতো বছরের দূর্দশা আজ সমাধান হয়েছে। ঈশ্বরগঞ্জ পরিবার ফেসবুক গ্রুপ কেও অনেক ধন্যবাদ আপনাদের মাধ্যমে আমি ইউএনও ম্যাডামের ভালো কাজ গুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছিলাম এবং সে পর্যন্ত যেতে পেরেছিলাম।

ঈশ্বরগঞ্জ পরিবারের এডমিন পারভেজ ভুইঁয়া জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আন্তরিকতায় দুই গ্রামের হাজার মানুষের যুগ যুগের বিশুদ্ধ পানিয় জলের দুর্ভোগ অবসান হলো। এই নলকূপ স্থাপন করায় দু’গ্রামের নারী পুরুষ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতি গভীর সন্তোষ প্রকাশ করেন।

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে রুমানা তুয়া বলেন, বিশুদ্ধ পানির জন্য পরিবারগুলো কষ্ট করছে- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি তিনি জানতে পারেন। পরে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় টিউবওয়েলটি স্থাপন করার ব্যবস্থা করেছেন। তিনি আরো বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকৃত অসহায় মানুষের সমস্যার চিত্র পাওয়া যায়। পরে সেগুলো যাচাই করে অসহায়দের সমস্যাগুলো সমাধানের চেষ্টা করে যাচ্ছি।

loading...
%d bloggers like this: