তৃতীয় লিঙ্গের জন্য চালু হলো মাদ্রাসা

0

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশে প্রথমবারের মতো তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের জন্য বেসরকারি উদ্যোগে একটি মাদ্রাসা চালু হয়েছে। মাদ্রাসাটিতে ১০ জন শিক্ষক রয়েছেন। এখানে ধর্মীয় ও সাধারণ শিক্ষার পাঠ নিতে পারবেন শতাধিক শিক্ষার্থী।

শুক্রবার ঢাকার কামরাঙ্গীরচরের লোহার ব্রিজের ঢাল এলাকায় তিনতলা একটি ভাড়া বাড়িতে ‘দাওয়াতুল কুরআন তৃতীয় লিঙ্গের মাদরাসা’টির কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এতে অর্থায়ন করছে মরহুম আহমেদ ফেরদৌস বারী ফাউন্ডেশন। এর অধ্যক্ষ পরিচালক মুফতি আবদুর রহমান আজাদ নিজেও উদ্যোক্তাদের একজন।

মুফতি আজাদ বলেন, ‘এই মাদ্রাসায় প্রথমে হিজড়াদেরকে কোরআন শিক্ষা দেয়া হবে। এছাড়া কওমি শিক্ষা সিলেবাস অনুসারে নুরানি, নাজেরা, হিফজুল কুরআন ও কিতাব বিভাগ চালু হবে।’ শুক্রবার থেকেই ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলে জানান তিনি।

এই শিক্ষা কার্যক্রমের পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করতে অভিজ্ঞদের নিয়ে আরেকটি আলাদা বিভাগ চালুরও পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান আবদুর রহমান আজাদ।

অধ্যক্ষ বলেন, ‘তাদের মূলধারায় ফিরিয়ে এনে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মাদ্রাসাটিতে ১০ জন শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন।’

মাদ্রাসার শিক্ষক আবদুল আজিজ হুসাইনী বলেন, ‘আজকের দিনটি বিশ্বের মধ্যে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। আমার জানা মতে, তৃতীয় লিঙ্গের লোকদের জন্য কোথাও আলাদা কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই। এটাই প্রথম।’

আবদুল আজিজ বলেন,‘ তৃতীয় লিঙ্গের লোকেরা সমাজে অবহেলিত, নানা বিষয়ে তারা বঞ্চিত। এমনকি তারা কোনো মসজিদে গিয়েও নামাজ পড়তে পারে না। তাদেরকে এখানে কোরআন শিক্ষা দেয়া হবে। পরবর্তী সময়ে কারিগরি শিক্ষা দেয়ার বিষয়ে কার্যক্রম শুরু করা হবে।’

মাদ্রাসার পরিচালক আবদুর রহমান আজাদ বলেন, ‘হিজড়াদের জন্য এই উদ্যোগ প্রথমত মহান আল্লাহকে খুশি করা। দ্বিতীয়ত মানবিক বিবেচনা করে বিবেকের তাড়নায় হিজড়াদের কল্যাণে এই মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এর আগে গত ছয় মাস ধরে ঢাকার যেসব এলাকায় হিজড়ারা বসবাস করেন এমন আট জায়গায় গিয়ে তাদের কোরআন শিক্ষা দেয়া শুরু হয়। এখন এক জায়গায় সবাই পাঠ নিতে পারবে।’

হিজড়া কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সভাপতি আবিদা সুলতানা মিতু বলেন, ‘হিজড়ারা যদি সার্বিক সহযোগিতা পায় তাহলে তারা দেশের সম্পদে পরিণত হবে। তাদেরকে বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে কাজের সুযোগ দিতে হবে, তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে তারা রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে কিছু করতে যাবে না। অপরাধ কমে আসবে।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইদুল ইসলাম মাদবর বলেন, ‘মাদ্রাসার জন্য স্থায়ী একটি জায়গার ব্যবস্থা করা হবে।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর আলম শুভ, কামরাঙ্গীরচরের বাইতুল উলূম ঢালকানগর মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি জাফর আহমাদসহ অনেকে।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১৩ নভেম্বর মন্ত্রিসভার বৈঠকে হিজড়াদের ‘তৃতীয় লিঙ্গ’ পরিচয়কে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিয়ে এ সংক্রান্ত নীতিমালা অনুমোদন করা হয়। পরের বছর ভোটার নিবন্ধন বিধিমালা প্রণয়নের সময়ই নির্বাচন কমিশন নিবন্ধন ফরমে লিঙ্গ পরিচয় হিসেবে হিজড়া যুক্ত করে। এরপর থেকে তারা বিভিন্ন নির্বাচনেও অংশ নিয়েছেন।

%d bloggers like this: