গ্রামীণ কল্যাণ সেবা দিচ্ছে প্রতিদিন, ডাক্তার আসে মাসে একদিন

0

খাইরুল ইসলাম আল আমিনঃ গ্রামীণ কল্যাণ, গ্রামীণ ব্যাংকের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান। যেখানে প্রতিনীয়ত রোগীরা প্রতারিত হচ্ছে। এখানে দূরদূরান্ত থেকে শতশত রোগী আসলেও সঠিক সেবা পাচ্ছে না। সেবার নামে প্রত্যন্ত অঞ্চলের গরীব-হতদরীদ্র ও সাধারণ মানুষদের থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে রমরমা ব্যবসা। বাহ্যিক দৃষ্টি থেকে ঝকঝকে হলে ও ভিতরটা সেবার নামে কসই খানায় পরিণত। এমন একটি প্রতারণার খবর এসে পৌঁছে আমাদের প্রতিবেদকের কাছে।
তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য যাওয়া হয় অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ কল্যাণে। ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে জাকজমক করেই সাজানো হয়েছে এ স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় স্বাস্থ্য সেবাদানকারী এ প্রতিষ্ঠানে নেই কোনো বৈধ কাগজপত্র। আবার নেই কোন ডাক্তার। যদিও একজন এমবিবিএস রয়েছে তিনি আসেন মাসে একদিন। সেবা দিচ্ছে প্রতিদিন, ডাক্তার আসে মাসে একদিন। প্রেসকিপশন করছেন প্যারামেডিক, এএসসি পাশ করা সনোগ্রাফার দিয়েই করানো হচ্ছে আল্ট্রাসনোগ্রাফি, নেই কোন ফার্মাসিষ্ট অথচ বিক্রি করছে ঔষধ। এটাতো গেলো সেবার বিষয়, এবার আসা যাক লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে। একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্র পরিচালনা করতে যে সমস্ত লাইসেন্স প্রয়োজন তার মধ্যে রয়েছে শুধু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ছাড়পত্র তবুও মেয়াদহীন। নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের লাইসেন্স, ফায়ার লাইসেন্স, ড্রাগ লাইসেন্স, আয়কর লাইসেন্স, দেখাতে পারেনি সনোগ্রাফারের সার্টিফিকেট। এমনকি নেই তাদের দৃশ্যমান কোন সাইনবোর্ড।
গ্রামীন কল্যাণ ময়মনসিংহের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক আবদুল হালিমের সাথে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি একেক দিন একেক জায়গায় আছেন বলে পাশ কাটিয়ে যান। মোবাইল ফোনে কথা বলে কিন্তু এই বিষয়ে কোন বক্তব্য চাইলেই তিনি বলেন পরে যোগাযোগ করছি।
এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ মোঃ নূরুল হুদা খান বলেন, আল্ট্রাসনোগ্রাফি করতে হলে নূন্মতম এম বি এস পাস থাকতে হবে। এছাড়াও এমবিবিএস এর পরেও অন্যান্য ডিগ্রি রয়েছে। কিন্তু এমবিবিএস পাস না করেই যদি কেউ আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে তাহলে এটা সম্পুর্ন অবৈধ হবে।
ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাকির হোসেন বলেন, গ্রামীন কল্যাণ স্বাস্থ্য কেন্দ্র নামে উচাখিলা কোন স্বাস্থ্য কেন্দ্র আছে বলে কোন তথ্য আমার কাছে নেই। কারা এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি খুলেছে বা কোন অথরিটির মাধ্যমে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি খুলা হয়েছে এই সর্ম্পকিত কোন তথ্য আমার কাছে নেই। যেহেতু একটি অভিযোগ আমার কাছে এসেছে সেহেতু আমি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মাধ্যমে বিষয়টি দেখবো ।

%d bloggers like this: