গৌরীপুরে বিতর্কিত শিক্ষক ফেরদৌসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ

0

নিজস্ব প্রতিনিধি:
ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌর মডেল সরঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ের বিতর্কিত ও শিশু যৌন হয়রানীর অভিযোগে বিভাগীয় মামলায় দন্ডপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক একেএম মাজহারুল আনোয়ার ফেরদৌসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার। উল্লেখ্য ফেরদৌস মাষ্টারকে চাকুরি থেকে বরখাস্তের দাবি জানিয়ে ময়মনসিংহ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এলাকাবাসী। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে উভয় পক্ষকে ১৩ মার্চ বেলা ১১ টায় গৌরীপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে উপস্থিত থাকার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন।

জানা গেছে গৌরীপুরে শিশু যৌন হয়রানীর ঘটনায় সমালোচিত শিক্ষক এই ফেরদৌস। ইতিপূর্বে তার বিতর্কিত কর্মকান্ড নিয়ে পত্র-পত্রিকায় বেশ লেখালেখি হয়েছে। জনশ্রæতি ওঠেছে ৫ মার্চ ময়মনসিংহ শহরের একটি হোটেল থেকে সন্দেহ জনক অবস্থায় ১৩/১৪ বছরের জনৈক শিশু কন্যাকে নিয়ে সে জনতার হাতে ধরা পড়ে। এনিয়ে সর্বমহলে ফেরদৌসকে নিয়ে ফের সমালোচনার তুমুল ঝড় বইছে। এদিকে ফেরদৌস মাষ্টার সাংবাদিকদের বলেন ঘটনারদিন ময়মনসিংহ শহরে তাকে অপহরণ করা হয়েছিল। সে  ষড়যন্ত্রের শিকার। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জুয়েল আশরাফ বলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোফাজ্জল হোসেনের নির্দেশে ফেরদৌর মাষ্টারের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের তদন্ত করা হবে ১৩ ও ১৪ মার্চ দু’দিনব্যাপী।
উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ফেরদৌস মাষ্টার গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউনিয়নের ভূটিয়ারকোনা সরকারি প্রাথমিক  বিদ্যালয়ে কর্মরত থাকা অবস্থায় ওই বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানীর করেছিল। এ অভিযোগে তাকে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় মামলায় বেতন স্কেলে অবনতিকরন দন্ড প্রদান করে রামগোপালপুর ইউনিয়নের ধূরুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শাস্তিমূলক বদলী  করা হয় (স্মারক নং-জে প্রা শি অ/ময়মন/বিভা-০৮/গৌরী ২০১১/১৫০(৬) তারিখ ১৯/৯/১২ইং)।

এ ছাড়া অপর ১টি যৌন হয়রানীর অভিযোগে বিভাগীয় মামলায় তাকে তিরস্কার লঘুদন্ড প্রদান করা হয় (স্মারক নং-জে প্রা শি অ/ময়মন/বিভা-২০১০/১৩৩৬/৪ তারিখ ১৯/৪/১১ইং)। এ লম্পট শিক্ষক ১৬/০৮/১৫ ইং তারিখে গৌরীপুর পৌর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করে। এসময় ওই বিতর্কিত শিক্ষকের যোগদানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছিল স্কুলের সকল শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ। এ ব্যাপারে পৌর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এসএমসি’র সভাপতি ম, নুরুল ইসলাম জানান, বিতর্কিত ওই শিক্ষক যোগদানের পর এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দীর্ঘ দিনের সুনাম ও ঐতিহ্য ক্ষুন্ন হয়েছে। সে সময় স্কুলের আতংকিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ ওই শিক্ষকের যোগদানে বিরোধিতা করে তীব্র প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ জানিয়েও যোগদান ঠেকাতে পারেনি।

%d bloggers like this: