গোলখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের অসামাজিক কাজের দায়ে স্কুল থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত!

0

কাজী মামুনঃপটুয়াখালী:
স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানী ও বিভিন্ন অসামাজিক অভিযোগে পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার গোলখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মু. শাহআলম মাষ্টারকে স্কুল কমিটির পক্ষ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।
সরজমিন ও ঘটনা সুত্রে জানা যায়, কলাপাড়া উপজেলার হলদি বাড়ি গ্রামের আব্দুস সত্তার হাওলাদারের ছেলে শাহ আলম গোলখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আসার আগে ২০১৩ সালে গলাচিপা গোলখালী সদাই দাখিল মাদ্রাসায় সহকারী শিক্ষক থাকা কালীন, মাদ্রাসা ছাত্রীকে যৌন হরানীর অপরাধে মাদ্রাসা কমিটি তাকে বহিস্কার সহ অর্থ জরিমানা ও মুচলেকা দিয়ে একই সদাই দাখিল মাদ্রাসা থেকেও ২০১৩ সালে এধরনের অপকর্মের জন্য তিনি বহিস্কার হন বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়।

এলাকা সূত্রে আরো জানা যায়, স্কুলের বিভিন্ন অসহায় ছাত্রীদের দূর্বলতার সুযোগে গোপনে অনেক ছাত্রীর সম্ভ্রম কেড়ে নিয়ছে।যৌন হয়রানীর এক পর্যায়, শাহ আলম মাষ্টারের অপকর্মের অডিও জনসাধারনের মাঝে প্রকাশ হলে, স্থানীয় জনসাধারন ফুলে ফেঁপে উঠলে শিক্ষার্থীদের অভিবাকরা স্কুল গামী ছাত্র/ ছাত্রীদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়, ফলে স্কুলের সুনাম ধরে রাখার জন্য ১৪ মার্চ ২০১৭ ইং স্কুল অফিস কক্ষে সকাল ১০ টায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মু. শফিক আহম্মেদ এর পক্ষ থেকে কমিটির সদস্য বৃন্দ মু. মিজানুর রহমান সাবেক প্রধান শিক্ষক, মস্তফা মাতাব্বর সাবেক মেম্বার, মু. হাবিব মিয়া,মো:সিরাজুল মোল্লা সহ এলাকার কয়েক শত মান্যগণ্য ব্যক্তিবর্গও জনসাধারণ ছাএ অভিভাবক অনেকেরই ক্ষোভ যে একজন শিক্ষক বার বার চরিএহীনতার পরিচয় দিলেও কর্তৃপক্ষের কোন পদক্ষেপ নিতে দেখছি না।এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন উক্ত সভায় না থাকায় মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি কল রিসিভ করেননি। উপস্হিত এলাকার জনসাধারণ ও স্কুলের শিক্ষার্থীদের চাপের মুখে প্রধান শিক্ষক শাহ আলমকে বহিস্কারের সিদ্ধান্তনেয়া হয়েছে বলে সাংবাদিকদের স্কুল ম্যানেজিং কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়।

%d bloggers like this: