ঢাকা ২৮.৯°সে ১৩ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

‘ফুটবল বাঁচাতে সুপার লিগ’

ইউরোপিয়ান সুপার লিগ (ইএসএল) নামের বিদ্রোহী টুর্নামেন্টের আত্মপ্রকাশ মহাসংকটে ফেলে দিয়েছে ফুটবলবিশ্বকে। ইউরোপীয় ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা উয়েফা ঘোষণা দিয়েছে, ফুটবল ধ্বংসের এ অশুভ উদ্যোগকে সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিহত করা হবে।

কিন্তু ফুটবল বিশ্বজুড়ে প্রবল সমালোচনা-প্রতিবাদ, উয়েফার হুমকি ফিফার অসমর্থন-কোনো কিছুতেই নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসছে না সুপার লিগ কর্তৃপক্ষ। রিয়াল মাদ্রিদ প্রেসিডেন্ট ও সুপার লিগের প্রথম চেয়ারম্যান ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, উয়েফার একচ্ছত্র আধিপত্য শেষ করতে ও ফুটবলকে বাঁচাতেই তাদের এ উদ্যোগ।

ইউরোপের অন্যতম বড় ১২টি ক্লাব যোগ দিয়েছে সুপার লিগে। প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসাবে বিদ্রোহী লিগে যুক্ত হবে আরও তিনটি ক্লাব। সব মিলিয়ে ২০ দলের এ টুর্নামেন্ট চালু হলে অস্তিত্ব সংকটে পড়ে যাবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। এজন্যই উয়েফার কড়া হুঁশিয়ারি, সুপার লিগে খেললে ঘরোয়া-আন্তর্জাতিক সব ধরনের টুর্নামেন্ট থেকে নিষিদ্ধ করা হবে সংশ্লিষ্ট সব ক্লাব ও ফুটবলারকে। অর্থাৎ দেশের হয়ে খেলতে পারবেন না মেসি, রোনাল্ডোরা! এবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে ওঠা চার দলের মধ্যে শুধু পিএসজিই এখনও যোগ দেয়নি সুপার লিগে।

উয়েফা সভাপতি সেফেরিন বলেছেন, সুপার লিগ বর্জন না করলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে এবারই বহিষ্কার করা হবে রিয়াল মাদ্রিদ, ম্যানসিটি ও চেলসিকে। সেই হিসাবে না খেলেই চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাওয়ার কথা পিএসজির! তবে উয়েফার হুমকিকে পাত্তাই দিচ্ছেন না পেরেজ। উদ্বিগ্ন সমর্থক ও ফুটবলারদের তিনি শতভাগ নিশ্চয়তা দিলেন, এসব শুধু ভয় দেখাতেই বলা হচ্ছে।

সোমবার রাতে একটি স্প্যানিশ টিভি শোতে সবাইকে আশ্বস্ত করে পেরেজ বলেছেন, ‘আমি নিশ্চিত করে বলছি, উয়েফা ভয় দেখাতে এসব বলছে। আমাদের ফুটবলারদের বিশ্বকাপে খেলা আটকানো যাবে না। তারা (ফুটবলার) শতভাগ নিশ্চিন্ত থাকতে পারে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ বা ঘরোয়া লিগ থেকেও আমাদের কেউ বাদ দিতে পারবে না। এটা অসম্ভব। আইন আমাদের পক্ষে আছে। শতভাগ নিশ্চিত থাকুন, এটা হবে না।’

দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে পেরেজ তুলে ধরেছেন সুপার লিগের প্রায়োজনীয়তা, যখনই কোনো পরিবর্তন হয়, কিছু মানুষ তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। আমরা এটা করেছি এ সংকটময় সময়ে ফুটবলকে বাঁচানোর জন্য। দর্শক কমে যাচ্ছে। আয় কমে যাচ্ছে। আমাদের সব কিছু শেষ হয়ে যাচ্ছে। তরুণরা আর ফুটবলে আগ্রহী নয়। কেন? কারণ, নিম্নমানের অনেক বেশি ম্যাচ হচ্ছে। দর্শকরা মজা পাচ্ছে না। সময়ের দাবি মেনে ফুটবলকেও বদলাতে হবে। বড় ক্লাবগুলোকে নিয়ে আকর্ষণীয় সব ম্যাচ হলে বিশ্বজুড়ে সবাই উপভোগ করবে।

এজন্যই আমরা এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি যে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বদলে সুপার লিগ হলে আর্থিক ক্ষতি আমরা পুষিয়ে নিতে পারব। যত বেশি বড় ম্যাচ তত বেশি আয়। এভাবেই অবস্থার উন্নতি হবে। সুপার লিগই একমাত্র সমাধান।’ ২০২৪ সাল থেকে নতুন ফরম্যাটে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে উয়েফা।




আপনার মতামত লিখুন :

এক ক্লিকে বিভাগের খবর