কে হচ্ছেন আল্লামা শফীর উত্তরসূরি

0

কওমি অঙ্গন ও সাধারণ ধর্মপ্রাণ মানুষের মাঝে এখন আলোচনার বিষয়- কে হচ্ছেন সদ্যপ্রয়াত আল্লামা আহমদ শফীর উত্তরসূরি? একই সঙ্গে আরও তিনটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালন করবেন কে? এ প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- হেফাজতে ইসলাম, বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড (বেফাক) এবং আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামিআতিল কওমিয়া।

দেশের প্রবীণ আলেম আল্লামা শফীর মৃত্যুর পর এখন কে বা কারা আসছেন এই তিন প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে, সেদিকেই এখন সবার দৃষ্টি। কওমি নেতারা বলছেন, এতদিন হাটহাজারী মাদ্রাসা, বেফাক-হাইয়া ও হেফাজতে ইসলামের নেতৃত্ব এককেন্দ্রিক থাকলেও এখন তিনটি আলাদাভাবে পরিচালিত হবে। কারণ আল্লামা শফীর মতো সর্বজনমান্য এমন কেউ নেই। তাই এসব পদে সবার গ্রহণযোগ্য এবং রাজনৈতিক কোনো অভিলাষ নেই এমন কাউকে নির্বাচিত করা হোক।

শুক্রবার রাতে সংবাদ সম্মেলনে এ সম্পর্কে হেফাজতের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষা পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী জানিয়েছেন, হেফাজতে ইসলামের পরবর্তী আমীর কে হবেন, তা কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হবে। আল্লামা শফীর ইন্তেকালের পর সংগঠনের কার্যক্রমে কোনো প্রভাব পড়বে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে বাবুনগরী বলেন, প্রভাব তো কিছু পড়বেই। তার মতো মানুষ আর পাওয়া যাবে না। এখন আমার দায়িত্ব কাউন্সিল ডাকা। কাউন্সিল যে সিদ্ধান্ত নেবে, সেটাই হবে।

এদিকে হেফাজতে ইসলামের আমীর হিসেবে ৩ জনের নাম আলোচনায় আসছে। তারা হলেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী, বর্তমান মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী এবং ঢাকা মহানগর আমীর মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী।

তবে চট্টগ্রাম অঞ্চলের হেফাজত কর্মীরা মনে করছেন, আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী বা আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দুজনের যে কোনো একজনই হবেন হেফাজতের পরবর্তী আমীর। হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক শেখ আহমদও বিবেচনায় আসতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে।

এছাড়া কে হবেন কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড এবং সরকার স্বীকৃত সম্মিলিত বোর্ডের প্রধান- এ নিয়েও আলোচনা চলছে জোরেশোরেই। একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, গঠনতান্ত্রিকভাবে বেফাকের চেয়ারম্যান যিনি হবেন, তিনিই আল-হাইআতুল উলয়ার চেয়ারম্যান হওয়ার কথা।

তবে বেফাকের বর্তমান মহাসচিব ও ঢাকার ফরিদাবাদ মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা আবদুল কুদ্দুছের সম্ভাবনা এই তালিকায় দেখছেন না অনেকে। আপাতত আলোচনায় যাদের নাম আসছে তারা হলেন- বেফাকের বর্তমান সহ-সভাপতি নূর হোসাইন কাসেমী ও নুরুল ইসলাম, ঢাকার যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদুল হাসানসহ আরও কয়েকজন।

কিছু সূত্র জানিয়েছে, খুব শিগগিরই বেফাক ও হাইয়া কর্তৃপক্ষ এসব বিষয়ের সমাধানে বসবে।

এদিকে শনিবার রাতে মজলিসে শূরার জরুরি বৈঠকে জুনায়েদ বাবুনগরীকে হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রধান শাইখুল হাদিস ও শিক্ষা সচিব করা হয়েছে।

%d bloggers like this: