করোনা মহামারীতে বাল্যবিবাহ প্রবনতা কমাতে হলে সকলকেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে

0

প্রদীপ বিশ্বাস(ব্যুরো চিফ)ময়মনসিংহ:
বর্তমান এই করোনা ক্রান্তিলগ্নে দুর্ভাগ্য জনক বেড়ে গেছে বাল্যবিবাহ, ঘরে বাহিরে যৌন নির্যাতনের ঘটনা অহরহ ঘটছে। বিশেষ করে করোনা মহামারী সময়ে ঘরের বাইরে বেরুতে না পারায়, স্কুল কলেজ বন্ধ থাকায় যৌন নির্যাতনের ঘটনার পাশাপাশি বাল্যবিবাহ প্রবনতা বেশি ঘটছে। শিশু-কিশোরীরা এই সময়ে কী ধরনের নির্যাতনের শিকার হচ্ছে তা নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি অত্যন্ত জরুরি। করোনা মহামারী যুদ্ধে, জিততে হলে সকলকেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। কিন্তু নারীর প্রতি নির্যাতন সে লড়াইকে দিন দিন কঠিন করে তুলছে। তাই এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে যাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকে। নিজেদের অস্তিত্বের প্রশ্ন যেখানে, মানবিকতার প্রশ্ন যেখানে, সেখানে এই নির্যাতন ও নাজুক অবস্থা কোনভাবে চলতে দেয়া যাবে না। আর এই সচেতনতা বৃদ্ধিতে শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে ময়মনসিংহের বিভিন্ন স্কুলের প্রধান শিক্ষক, স্কুল কমিটি, স্থানীয় এনজিও এবং স্থানীয় কমিউনিটি লিডারদের “বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে নিজ নিজ ভূমিকা’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনা সভায় এ তথ্য প্রকাশ করেছেন আর এইচ স্টেপ এ-র প্রকল্প কর্মকর্তা কে এম কামরুল হাসান ।অদ্য ২৭ জুলাই সোমবার ময়মনসিংহ মহানগরীর কাচিঝুলিস্থ রেড চিলি রেস্টুরেন্টে এ সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে স্কুলের প্রধান শিক্ষক, স্কুল কমিটি, স্থানীয় এনজিও এবং স্থানীয় কমিউনিটি লিডারদের আরো শক্তিশালী ভুমিকা রাখারও আহবান জানানো হয়। “আর এইচ স্টেপ” এর ‘হেলো আই এম’ প্রকল্পের আওতায় এ সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত সমন্বয় সভায় উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের ৩ নং ওয়ার্ড এর কাউন্সিলর জনাব শরিফুল ইসলাম, ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নিয়াজ মোরশেদ ও ১৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দেলুয়ার হোসেন দিলু, বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ এর প্রিন্সিপাল, সিনিয়র সাংবাদিক প্রদীপ বিশ্বাস সহ ২০ জন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন ।

সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য উপস্থাপন করেন- আর এইচ স্টেপ এ-র প্রকল্প কর্মকর্তা কে এম কামরুল হাসান । সংস্থার প্রকল্প সহযোগী, পারুল আক্তার এ-র উপস্থাপনায় এসময় ‘বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে স্কুলের প্রধান শিক্ষক, স্কুল কমিটি, স্থানীয় এনজিও এবং স্থানীয় কমিউনিটি লিডারদের ভূমিকা শীর্ষক’ আলোচনায় পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করেন প্রকল্প সহযোগী, মো. রনি খান ও সাহানা আক্তার, আলোচনা সভায় শিশু-কিশোরীরা কীভাবে যৌন নির্যাতন কিংবা বাল্যবিবাহর শিকার হচ্ছেন সে বিষয়ে প্রতিনিধিরা নিজেদের বা আশেপাশে ঘটে যাওয়া ঘটনার বাস্তব চিত্র উপস্থাপন করেন। এ সময় বাল্যবিবাহ, যৌন নির্যাতন বন্ধের লক্ষ্যে স্কুলের প্রধান শিক্ষক, স্কুল কমিটি, স্থানীয় এনজিও এবং স্থানীয় কমিউনিটি লিডারদের আরো বেশী সজাগ ও সচেতন হওয়ার আহবান জানানো হয়।

%d bloggers like this: