loading...

করোনা নিয়ে গুজবে কান দেবেন না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

0

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চীনসহ কয়েকটি দেশে ভয়াবহ আকার ধারণ করা প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস নিয়ে বাংলাদেশে মিথ্যা গুজব ছড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। এই গুজবে কান না দিতে তিনি দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বুধবার সকালে রাজধানীর মহাখালীতে নবনির্মিত নার্সিং অধিদপ্তরের নতুন ভবন পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এই আহ্বান জানান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাস নিয়ে এক শ্রেণির মানুষ কিছু মিথ্যা গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করছে যা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না। মুরগির মাংস খাওয়া, মাস্ক ব্যবহার করা থেকে শুরু করে বিদেশ ফেরত কোনো সুস্থ্ মানুষকে নিয়ে মিথ্যা গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রতিদিনই আপডেট দেয়া হচ্ছে এবং করণীয় বিষয়গুলো বলা হচ্ছে। সুতরাং কোথাও কোনো রকম মিথ্যা গুজব ছড়ানো যাবে না এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনার বাইরে অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কোনো ধরনের কথায় কান দেয়া যাবে না।’

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাত কতটা প্রস্তুত এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যখাত সবদিক দিয়ে এখন পুরোপুরি প্রস্তুত। ইতিমধ্যেই দেশের সব প্রবেশপথে দুই লাখেরও বেশি মানুষকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। সন্দেহজনক প্রায় ৭২ জন বিদেশ ফেরত মানুষকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশে একজনও করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়নি। আর কোনো কারণে কোনো সংক্রমিত করোনা রোগী চলে এলেও তার চিকিৎসার সবধরনের জোরালো প্রস্তুতি দেশের স্বাস্থ্যখাতের রয়েছে।’

নার্সিং অধিদপ্তরের গুরুত্ব উল্লেখ করে জাহিদ মালেক বলেন, ‘দেশে বর্তমানে সরকারি, বেসরকারি সব মিলিয়ে ৩৭৬টি নার্সিং ইনস্টিটিউট রয়েছে। এখান থেকে প্রতি বছর গড়ে প্রায় ২০ হাজার নার্স বের হয়ে আসছে। প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরকারের নীতিমালার আওতায় আনতে হবে। প্রতিষ্ঠানগুলোর সরকারের নীতিমালা পুরোপুরি মেনে চলতে এবং নার্সিং পেশাকে আরও আধুনিকায়ন করতে নার্সিং অধিদপ্তরের গুরুত্ব অনেক। নতুন ভবনের অবকাঠামোগত সব কাজই প্রায় শেষ হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী মাসেই ভবনটিতে কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হবে।’

পরিদর্শনকালে স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূর, নার্সিং অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সিদ্দিকা আক্তারসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

loading...
%d bloggers like this: