এমন উত্তেজনা আগে দেখেনি মার্কিনিরা

0
ভোট হচ্ছে মার্কিন মুল্লুকে।উত্তেজনা-উৎকণ্ঠা সারা বিশ্বে। কারো চোখ ফোনের স্ক্রিনে, কারো বা টিভির পর্দায়। মনে হচ্ছে যেন ক্রিকেট ম্যাচের শ্বাসরুদ্ধকর মুহূর্ত চলছে। এক বলে উইকেট তো অন্য বলেই চার-ছয়।

সকাল গড়িয়ে রাত হলেও কাটেনি সেই উত্তেজনা ও উৎকণ্ঠা। যদিও ইতোমধ্যে দুই প্রতিদ্বন্দীই নিজেদেরকে জয়ী বলে ঘোষণা করেছেন। তবে সেটি সংবিধান সম্মত নয়।

কারণ সাতটি অঙ্গরাজ্যের ৮৭টি ইলেকটোরাল কলেজের ভোট এখনো বাকি। বাকি আছে ডাকযোগে আগাম ভোট গণনার। যা শেষ হতে কয়েক দিন থেকে কয়েক সপ্তাহ সময় লেগে যেতে পারে।

এমন টানটান উত্তেজনাকর মুহূর্তে সবার প্রশ্ন, ‘গাধা’ নাকি ‘হাতি’র দখলে যাচ্ছে হোয়াইট হাউস। সেই প্রশ্নের উত্তর সহজে মিলবে না। উত্তর পেতে চোখ রাখতে হতে পারে আদালতের সিদ্ধান্তে। কারণ ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তুলে আদালতের শরণাপন্ন হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ট্রাম্প।

এদিকে বাকি সাতটি রাজ্যের ছয়টিতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে ‘হাতি’ ও ‘গাধা’। সেগুলো হলো জর্জিয়া, নেভাদা, উইসকনসিন, মিশিগান, পেনসিলভানিয়া ও নর্থ ক্যারোলিনা। যেগুলোর কোনো তিনটি কিংবা দুটিতেই জিতলেই বিজয় নিশ্চিত হবে জো বাইডেনের।

অন্যদিকে সাতটি রাজ্যের পাচঁটিতেই সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে আছেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের হাতি। ব্যবধান ধরে রাখতে পারলেই বিজয় নিশ্চিত ট্রাম্পের।

বাংলাদেশ সময় বুধবার সন্ধ্যা ৮টা পর্যন্ত ২৩৮টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন ‘গাধা’ প্রতীকে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। অন্যদিকে ২১৩টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়ে পিছিয়ে আছেন ‘হাতি’র প্রার্থী রিপাবলিকানের ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মার্কিন গণমাধ্যমগুলোর তথ্য অনুযায়ী, মিশিগানে ৪৯.০৫ শতাংশ ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। যেখানে বাইডেনের প্রাপ্ত ভোটের হার ৪৯.০০ শতাংশ।

অন্যদিকে উইসকনসিনে ৪৯.৬ শতাংশ ভোট পেয়ে এগিয়ে বাইডেন। এই অঞ্চলে ট্রাম্পের প্রাপ্ত ভোট ৪৮.৯ শতাংশ। পেনিসিনভেনিয়ায় বড় ব্যবধানে এগিয়ে আছেন ট্রাম্প। অঙ্গরাজ্যেটিতে তার প্রাপ্ত ভোট ৫৫.৮ শতাংশ। আর বাইডেন পেয়েছেন ৪৩.১ শতাংশ ভোট।

নর্থ ক্যারোলিনায় সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে ট্রাম্প। অঞ্চলটিতে ট্রাম্পের ভোট ৫০.১ শতাংশ। বিপরীতে বাইডেনের ভোট ৪৮.৭ শতাংশ। নর্থ ক্যারোলিনার মত জর্জিয়ায়ও এগিয়ে ট্রাম্পের হাতি। ট্রাম্পের প্রাপ্ত ভোট ৫০.৫ শতাংশ। অন্যদিকে বাইডেনের গাধার ভোট ৪৮.৭ শতাংশ।

এদিকে আলাস্কায় বিশাল ব্যবধানে জয়ের পথে ট্রাম্প। অন্যদিকে নেভাদায় সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে আছে বাইডেন। নেভাদায় বাইডেন গাধা পেয়েছে ৪৯.২ শতাংশ। বিপরীতে ট্রাম্পের হাতির ভোট ৪৮.৬ শতাংশ।

এত হিসাবের পরও জটিলতা রয়ে গেছে। কারণ দেশটির গণমাধ্যমগুলো বলছে পিছিয়ে থাকা রাজ্যগুলোতে গণনার বাকি ভোটগুলো বাইডেনকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট।

জানা গেছে, পেনসিলভানিয়ায় ১৪ লাখ ডাক ভোট গণনা বাকি আছে। সব ভোট গুনতে কয়েক দিন লেগে যেতে পারে। মিশিগানের ডেট্রয়েট, উইসকনসিনের মিলওয়াকির মতো বড় শহরগুলোর খবর এখনও অজানা। এসব শহরে ডেমোক্র্যাটদের ভোট বেশি। তবে সমীকরণ ঘুরিয়ে দিতে পারে জর্জিয়া।

মঙ্গলবার ফল প্রকাশের শুরুতে ট্রাম্প বেশ এগিয়ে থাকলেও সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ব্যবধান কমে উত্তাপ বাড়ছে। বাইডেনের পক্ষে যেতে পারে এমন শহর আটলান্টায় ভোট গণনায় দেরি হচ্ছে একটি পানির পাইপ ভেঙে পড়ার কারণে।

এসব জটিল সমীকরণের কারণে এখনও ঠিক করে বলা যাচ্ছে না কে হচ্ছেন নয়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট। কার দখলে যাচ্ছে হোয়াইট হাউস। গাধা নাকি হাতি? জানতে উত্তেজনা, উৎকণ্ঠা নিয়ে অপেক্ষা করতে হবে আরো বেশ কয়েক দিন।

%d bloggers like this: