একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি

0

শরাফত আলী শান্ত:

একুশের প্রথম প্রহরে জাতীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি। এসময় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জেএম কাদেরসহ দলের অন্যান্য সিনিয়র নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি এক বাণীতে বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারি শুধু ভাষা অন্দোলনের স্মৃতিমণ্ডিত দিন নয়, দেশের স্বাধীনতারও বীজ রোপিত হওয়ার দিন এটি। বায়ান্ন ভাষা আন্দোলনের রক্তক্ষয়ী এই দিনটি এখন আর শুধু শোক ও বেদনার দিন নয়। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের, সব ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার সর্বজনীন উৎসবের দিন।

তিনি আরোও বলেন, একুশের শহীদদের আত্মবলিদান বাঙালিকে প্রতিরোধ গড়ে তোলার সাহস জুগিয়েছে। এই সাহসই ছিল ১৯৭১ পর্যন্ত প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামের অনুপ্রেরণা। আর বাংলাভাষী জনগণের জাতি রাষ্ট্র বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে হলে এই প্রেরণাকে বুঁকে লালন করতে হবে। সর্বস্তরে বাংলাভাষা প্রতিষ্ঠার দায় পূরণও উদ্যোগী হতে হবে। ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে হার না মানা চেতনাকে সঙ্গী করে দেশ গঠনে ব্রতী হলে কাঙ্খিত সাফল্য অর্জন করা সম্ভব হবে। একটি সুখী সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় এ অপরাজেয় চেতনা হোক আমাদের নিত্যসঙ্গী।

মহান এ ত্যাগের দিনে বিরোধীদলীয় নেতা সশ্রদ্ধচিত্তে স্মরণ করেন মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা রক্ষার সংগ্রামে আত্মদানকারী সকল শহীদের পবিত্র স্মৃতির প্রতি এবং একই সাথে সকল শহীদের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন।

ভাষা আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী মহান শহী ও শহীদের পরিবারের পবিত্র স্মৃতির প্রতি তিনি সবসময় বিনম্র শদ্ধা প্রকাশ করেন। শহীদের মর্যাদা রক্ষার সংগ্রামে সচেষ্ট বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ।

দেশ ও দেশের মানুষের প্রতি ভালবাসার আত্মপ্রকাশ করে গেছেন সর্বদা। যিনি দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতার দায়িত্ব পালন করেছেন।

হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের রাষ্ট্রপতিত্ব কালীন সময়ে রওশন এরশাদ সমাজ কল্যাণ ও নারী-শিশুর অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সচেষ্ট ছিলেন। তিনি ‘বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা সংস্থা’ এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। ১৯৭৫ সালে তিনি ‘সেনা পরিবার কল্যাণ সমিতি’  এর প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট নিযুক্ত হন। ১৯৮৫ সালের মে মাসে বন্যাকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন।

%d bloggers like this: