loading...

কলাপাড়ায় জলোচ্ছ্বাস থেকে বাঁচতে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ নির্মাণ

0

পারভেজ, কলাপাড়া  প্রতিনিধি:

সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের নির্মান কাজের দীর্ঘসূত্রিতায় নিজস্ব অর্থায়নে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ নির্মান করছে উপজেলার ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নের রমজানপুর গ্রামের বাসিন্দারা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৪৭/২ পোল্ডারের ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধটি নির্মাণে বিগত দশ বছরে কোন অগ্রগতি না থাকায় বুধবার সকালে এবাঁধ নির্মানে অংশগ্রহন করে এলাকার কয়েকশত নারী-পুরুষ।স্থানীয়রা জানায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৪৭/২ নং পোল্ডারে রমজানপুরে বেড়িবাঁধ নাথাকায় প্রায় ত্রিশ হাজার মানুষের র্নিঘুম রাত কাটে জলোচ্ছ্বাস আতংকে। ভাংগা বেড়িবাঁধের কারনে জনজীবনে দেখা দিয়েছে চরম দুর্ভোগ। জোয়ারের প্রভাবে যে কোন মুহূর্তে সম্পূর্ণভাবে তলিয়ে যাবার শঙ্কায় রয়েছে সকল আবাদি জমি। ফলে বর্ষা মৌসুমে চাষাবাদ নিয়ে হয়ে পড়েছেন শংকিত।

বারবার স্থানীয় প্রশাসন এবং সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের কাছে ধর্না দিয়ে আশ্বাস ছাড়া অগ্রগতি মেলেনি।রমজানপুরের বাসিন্দা নান্নু জোমাদ্দার বলেন, ইতিমধ্যে তিন’শ একর আবাদি জমি নদীগর্ভে হারিয়ে গেছে। অধিকতর ঝুকির মধ্যে রয়েছে প্রায় ত্রিশটি পরিবারের বসতভিটা। বর্ষা মৌসুম শুরুর পূর্বে বাঁধ নির্মাান করা না হলে এসব বসতবাড়ী যেকোন সময় নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।অতিসম্প্রতি ভেংগে বেড়িবাঁধ এলাকা পরিদর্শনে আসেন বিশ্ব ব্যাংকের একটি প্রতিনিধি দল। তবে কবে নাগাদ এর সমীক্ষার কাজ শেষ হবে কিংবা আদৌ বেড়িবাঁধটি নির্মাণ করা হবে কিনা এ নিয়েও রয়েছে তাদের মাঝে সংশয়। ফলে স্থানীয়রা স্বেচ্ছাশ্রমে ঝুঁকিপূর্ণ ওইবেড়িবাঁধ নির্মানে কাজ শুরু করেছে।স্থানীয় কাজেম আলী হাওলাদার বলেন, বঙ্গোপসাগর ও রামনাবাদ চ্যানেল কাছাকাছি থাকায় সোনাতলা নদীতে পানির চাপথাকে অনেক বেশি।

দ্রুত ব্লক দিয়ে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা না হলে স্থানীয়দের নির্মান করা সনাতন পদ্ধতির এবাঁধ কোন কাজে আসবে না। এসব জেনেও জলোচ্ছাস আতংক থেকে বাঁচতে তারা এ বাধ নির্মান করেছেন।ডালবুগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম সিকদার বলেন, এলাকার মানুষের জমি, ফসল রক্ষা করা খুবই জরুরী। বিশ্ব ব্যাংকের পদক্ষেপ অনুযায়ী কাজ শুরু করলেও অনেক বিলম্ব হবে। এজন্য পাউবো নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে একাধিক বার যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু তারা সেভাবে উদ্যোগ নিচ্ছেনা।পানি উন্নয়ন বোর্ডের কলাপাড়া জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের জানান, ডালবুগঞ্জের ৪৭/২ নং পোল্ডারের বেড়িবাঁধটি সম্প্রতি বিশ্ব ব্যাংক প্রতিনিধি দল পরিদর্শন করে গেছেন। বরাব্দ পেলে অচিরেই নতুন বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

loading...
%d bloggers like this: