loading...

কলেজ শিক্ষার্থীর মাথা ফাটালেন মমেকের চিকিৎসক

0

কলেজ শিক্ষার্থী মো. তরুণ মিয়ার মাথা ফাটিয়ে দিলেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের এক চিকিৎসক। অভিযুক্ত ওই চিকিৎসকের ডা. এ.কে.এম আনিসুর রহমান(বাবলু)। সে মমেক হাসপাতালের ডেন্টাল বিভাগের আবাসিক সার্জন বলে জানা গেছে।

সোমবার (৮ জুলাই) দুপুরে মমেক হাসপাতালের ডেন্টাল বিভাগে এ ঘটনা ঘটে। আহত তরুণ ঈশ্বরগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।

আহত তরুণ মিয়া অভিযোগ করে বলেন, ‘সোমবার (৮ জুলাই) সকাল ১০ টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে ডাক্তার দেখাবো বলে আমি অপেক্ষা করছি। তখন ডাক্তার ৩০ মিনিট রোগী দেখার পর রুম থেকে বেরিয়ে অন্য কোথাও ১ ঘণ্টার জন্য চলে যায়। এরপর বেশি রোগী হওয়ায় ১ ঘণ্টা না থাকার কারণে বিঘ্ন ঘটে। ডাক্তার আসার পর আমি ডাক্তার দেখানোর তার জন্য রুমে যাই। তখন ডাক্তার বলেন রুম থেকে বেরিয়ে যান। এখন রোগী দেখব না।’

তিনি বলেন, ‘এসময় আমি বলি, স্যার আমার আগামীকাল পরীক্ষা আছে। আমাকে আজকে একটু দেখে দেন। পরে আসতে আমার অসুবিধা হবে। এভাবে কথা বলায় ওই চিকিৎসক তার রুমে থাকা বসার টুল দিয়ে মাথায় আঘাত করে।’

এতে তরুণ মিয়ার মাথা ফেটে রক্ত ঝড়তে থাকে। পরে তরুণের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তার হাত থেকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

অন্যদিকে, মমেক হাসপাতালের ডেন্টাল বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা: এ.কে.এম আনিসুর রহমান বাবলুর সঙ্গে এ বিষয়ে মুঠো ফোনে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি যা বলেছি, গতকালই বলে দিয়েছি। এখন আর কথা বলতে পারবো না। যেহতো বিষয়টি অফিসিয়াল হয়ে গেছে, আপনি ডেপুটি ডাইরেক্টর স্যারের সাথে কথা বলুন।’

মমেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. লক্ষ্মী নারায়ণ এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘ঘটনাটি আমি শুনেছি। আহত কলেজ শিক্ষার্থী আমার কাছে মৌখিকভাবে বলেছে। তাকে বলেছি লিখিত অভিযোগ দিতে। পরে সে আর অফিসে আসেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থার কথা জানিয়েছেন এই কর্মকর্তা।’

loading...
%d bloggers like this: