loading...

গৌরীপুরে  দোকান ও বাড়িতে হামলা-লুটপাট, আহত-২

0

আবদুল কাদির:
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার গোবিন্দপুর বাজারে রবিবার (২৬ মে) সন্ধ্যা ৭ টায় স্থানীয় সামছুল আলম মেম্বার ও আব্দুল মালেকের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষের দোকান এবং বাড়িতে মধ্যযুগীয় কায়দায় সশস্ত্র হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর-লুটপাটের অভিযোগ ওঠেছে।

এ হামলায় গুরুতর আহত আবুল কাশেম (৫৫) ও চাঁন মিয়া (৬৫) ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আশংকাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
কুল্লাতলি গ্রামের মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে আব্দুল জলিল জানান, পাশ্ববর্তী শোলগাই গ্রামের ইউপি মেম্বার সামছুল আলম ও আব্দুল মালেক গংদের সাথে তাদের কিছুদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে ঘটনার দিন সন্ধ্যা ৭ টার দিকে উল্লেখিত দুই ব্যক্তির নেতৃত্বে দেড় শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে গোবিন্দপুর বাজারে তার ভাই আবুল কাশেমের হার্ডওয়ারের দোকানে অতর্কিতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর-লুটপাট করে। এতে বাঁধা দেয়ায় আবুল কাশেম ও দোকানের সামনে বসে থাকা গোবিন্দপুর গ্রামের মৃত সদর উদ্দিনের ছেলে চাঁন মিয়া (৬৫) কে রামদা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে হামলাকারীরা। এর পর গোবিন্দপুর বাজারে অবস্থিত তার (আব্দুল জলিলের) বোন জামাই মাঈন উদ্দিনের (৫৫) বাসায় ব্যাপক ভাংচুর-লুটপাট করা হয়।
এ হামলার ঘটনায় ইউপি মেম্বার সামছুল আলম জানান, আবুল কাশেম গংদের সাথে বেশ কিছুদিন ধরে শোলগাই গ্রামের লোকজনের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। তিনি একটি মামলার আসামী।
তিনি আরো বলেন ঘটনার দিন তিনি এলাকায় ছিলেন না। বিক্ষুব্দ গ্রামবাসী উক্ত হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে।
গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

loading...
%d bloggers like this: