loading...

আগে টাকা পরে বিদ্যুৎ! বিদ্যুৎ সংযোগের নামে হালুয়াঘাটে উৎকোচ আদায়

0

ওমর ফারুক সুমন, হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) থেকেঃ

সারাদেশে বিনামূল্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে সরকার বদ্ধপরিকর।কিন্তু বিদ্যুতের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজসে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার নামে অবৈধ উপায়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। আর এই কাজটি করতে গ্রামের এক শ্রেণীর দালাল থেকে শুরু করে উপর পর্যন্ত রয়েছে একটি অসাধু চক্র। ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলায় এমনই কিছু অভিযোগ রয়েছে গ্রামের কিছু অসাধু চক্রের বিরুদ্ধে।বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার কথা বলে হাতিয়ে নিচ্ছে বিপুল পরিমান টাকা।

সরেজমিনে হালুয়াঘাট ইউপজেলার সীমান্ত এলাকায় জনসাধারনের সাথে কথা বললে রংগমপাড়া গ্রামের শবালী চাম্বুগং (৫০) বলেন, আমাদের কাছ থেকে ৩২ হাজার টাকা নিয়েছে প্রতিবেশি আমির হামজা। রংগমপাড়া গ্রামের মোহাম্মদ আলী মাষ্টার (৬৭) বলেন, বিদ্যুৎ আনলে টাকা লাগবে! খুঁটি আনতে টাকা, মিটার লাগাইতে টাকা, সংযোগ পেতে লাগে টাকা, ইত্যাদি নানা অজুহাত দেখিয়ে প্রতিজনের কাছ থেকে আড়াই হাজার থেকে করে টাকা নেন একই গ্রামের আক্কাছ মেম্বার (৩৫), শাহালম (৫৫), ফয়জুল (৪৫)সহ একটি চক্র।তাদের বক্তব্য আগে টাকা পরে বিদ্যুৎ।ঝলঝলিয়া গ্রামের ওমর ফারুক লিটন (৩৬), আব্দুল মান্নান (৪২), রংগমপাড়ার সিরাজ উদ্দিন (৫২), জামগড়ার আব্দুল হামিদ (৫৫) একই অভিযোগ করে বলেন, প্রত্যেকের কাছ থেকে আড়াই হাজার করে টাকা নেন বিদ্যুৎ দিবে বলে।

এমনিভাবে স্থানীয়রা রংগমপাড়া, ঝলঝলিয়া, ঝামগড়া গ্রামের কতিপয় অসাধু চক্রের বিরুদ্ধে টাকা নেয়ার অভিযোগ করেন।স্থানীয়রা বলেন, এই চক্রটি বিদ্যুৎ দেয়ার কথা বলে সাধারন মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছেন লক্ষ লক্ষ টাকা। এ সকল অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত চক্রের সদস্য আক্কাস মেম্বার (৩৫)বলেন, আমাকে ২০-৩০ জন লোক বিদ্যুতের লোকজনকে আপ্যায়ন বাবদ হাজার-পনেরশত করে টাকা দিয়েছিলো, পরে অনেককেই টাকা ফেরৎ দিয়ে দিয়েছি। অভিযুঅক্ত আব্দুল কাদির একই কথা বলেন। তিনি বলেন একটি পক্ষ তাদে বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ করছে। এ বিষয়ে কথা বলতে রাজী হননি উক্ত এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত পল্লি বিদ্যুৎ এর নির্বাচিত চেয়ারম্যান কাজী শফিকুল ইসলাম শফিক।

loading...