loading...

গৌরীপুরে ইয়াবা দিয়ে ব্যবসায়ীকে ফাঁসানোর চেষ্টার আভিযোগে পুলিশ আটক, জনগনের বিক্ষোভ

0

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে এক ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগে ৩ পুলিশ সদস্যকে আটকে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। রোববার রাত সাড়ে ১০ টা থেকে তাদের আটকে রেখে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার রামগোপালপুর ইউনিয়নের বলুহা গ্রামের আবদুল কদ্দুসের ছেলে ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ী বর্ষা টেলিকমের মালিক খোকন মিয়া (৩০) ইয়াবা বিক্রি করেন বলে গৌরীপুর থানার পুলিশকে তথ্য দেওয়া হয়।

এমন তথ্যে গৌরীপুর থানার এসআই আবদুল আউয়ালেরর নেতৃত্বে এসআই রুহুল আমিন, এএসআই আনোয়ার হোসেন ও কামরুল এবং কনস্টেবল আল আমিন রামগোপালপুর বাজারে খোকনের দোকানে যান।

এক পর্যায়ে সাদা পোশাকের পুলিশ সদস্যরা খোকনের দোকানে তল্লাশি শুরু করলে স্থানীয়রা এগিয়ে যান। এরপর খোকনের দোকানে একটি পুটলি পাওয়া যায় বলে পুলিশ জানালে বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ জানান খোকন ও উপস্থিত লোকজন। তখন খোকনকে থাপ্পর দেয় পুলিশ এতে স্থানীয়রা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। এ সময় দুজন পালিয়ে যায়, বাকি ৩ পুলিশ সদস্যদের ঘেরাও করে বিক্ষোভ শুরু করেন স্থানীয়রা। এক পর্যায়ে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেন তারা।

খবর পেয়ে রাত ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে সড়ক অবরোধ অবস্থায় পাওয়া যায়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে অবরুদ্ধ ছিলেন পুলিশ সদস্যরা।

বর্ষা টেলিকমের মালিক খোকন মিয়া বলেন, রাত ১০টা ১৫ মিনিটের দিকে ৫ জন পুলিশ আসে আমার দোকানে মোবাইলে টাকা লোড করতে। পরে একজন আমাকে বলে সাইড দাও আমরা তোমার দোকান তল্লাসি চালাবো। আমি তাদের ভিতরে আসার আনুমতি দেই। এক পর্যায়ে তারা তল্লাশির নামে আমার দোকানের সিসি ক্যামেরার চার্জার খুলে ফেলে। আমি তাদের যখন বললাম ক্যামেরা অন করে তল্লাশি করুন বন্ধ করলেন কেন ?  তারা জানায় আমরা কি চোর নাকি? যে সিসি কেম্যারা লাগবে। পরে দোকানের বাহিরে দারিয়ে থাকা এক পুলিশ আমার দোকানের বাহিরে ইলেক্ট্রিক ক্যাবলের কয়েলের ভিতর থেকে কাগজে মুড়ানো ২টি ইয়াবা বের করে ও আমাকে ইয়াবা ব্যাবসায়ী বলে হাতকাড়া পরায়। আমি প্রতিবাদ করতে চাইলে আমাকে থাপ্পর মারে। 

এএসআই আনোয়ার হোসেন বলেন, ফ্লেক্সিলোড ব্যবসার পাশাপাশি ইয়াবা বিক্রি করার খবরে তারা তল্লাশি শুরু করেন। তল্লাশির এক পর্যায়ে একটি পুটলি পাওয়া যায় খোকনের কাছে। কিন্তু স্থানীয়রা খোকনকে ভালো লোক দাবি করে তাদের আটকে ফেলে বিক্ষোভ শুরু করে।

গৌরিপুর থানার ওসি আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ঘটনাস্থলে আমরা আছি। আমাদের একটি টিম মাদকদ্রব্য উদ্ধারে বের হয়েছিলো। তবে বিষয়টি তদন্ত করে অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা হবে।

ময়মনসিংহ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( গৌরীপুর সার্কেল) সাখের হোমেন সিদ্দিকী বলেন,আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, অপরাধী যেই হোক তাকে ছাড় দেয়া হবে না।

 

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

loading...
%d bloggers like this: