loading...

‘আমি ভোটে দাঁড়াচ্ছি না’

0

বিনোদন ডেস্ক:

অনেকের মতো বলিউড ভাইজান সালমান খানকেও নিয়ে গুঞ্জন উঠেছিল, তিনি নাকি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রার্থী হচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ভাইজানের সুসম্পর্কের কারণে অনেকে এই গুঞ্জন বিশ্বাসও করেছিলেন। কিন্তু সব গুঞ্জনকে গুজব ও মিথ্যা বলে প্রমাণ করলো সালমানের এক টুইট বার্তা।

শুক্রবার ভাইজান নিজের পেজ থেকে করা ওই টুইটে লিখেন, ‘আমি ভোটে দাঁড়াচ্ছি না’। যে খবর রটেছে তার পুরোটাই গুজব। এমনকি আমি কোনো দলের হয়ে রাজনৈতিক প্রচারণায়ও নামছি না।’

যদিও ২০০৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেস প্রার্থী পঙ্কজ সাঙ্গভির পক্ষে প্রচারণায় নেমেছিলেন সালমান খান। তবে ঠিক তার নয় বছর পর প্রেক্ষাপট পুরোপুরি ভিন্ন। বর্তমানে বিজেপি সরকারের সঙ্গেই সল্লু মিয়ার সম্পর্কটা মধুর।

গত ১৩ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশের জনগণকে ভোট দেযার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করার জন্য এক টুইট বার্তায় বলিউড তারকাদের আহ্বান জানান। সেই টুইটটি তিনি সালমান খান, আমির খান, দীপিকা পাড়ুকোন, আলিয়া ভাট ও আনুশকা শর্মাসহ আরও কয়েকজন তারকাকে ট্যাগ করেন।

সবার আগে মোদির সেই টুইটে সাড়া দেন সালমান খান। পাল্টা টুইটে তিনি লিখেন, ‘আমরা গণতান্ত্রিক দেশের নাগরিক। ভোট দেয়া আমাদের অধিকার। আমি সব ভারতীয়, যারা ভোট দেয়ার উপযুক্ত, প্রত্যেককে এই অধিকারের সদ্ব্যবহার করার জন্য আবেদন জানাচ্ছি। তারা যেন দেশের সরকার গঠনে যোগদান করেন।’

সালমানের এই টুইটের পরেই আলোচনা জোরালো হয়েছিল যে, তিনি ১৭তম লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির ব্যানারে ভোটে দাঁড়াবেন। কিন্তু অভিনেতা সাফ জানিয়ে দিলেন, আপাতত রাজনীতিতে নামার কোনো আগ্রহ তার নেই। অভিনয় নিয়েই তিনি থাকতে চান।

মাস দুয়েক আগে গুঞ্জন উঠেছিল, বলিউডের দুই গায়ক কুমার সানু ও অভিজিৎ ভট্টাচার্য এবং দুই অভিনেত্রী রানি মুখার্জী ও মৌসুমী চট্টোপাধ্যায়রাও বিজেপির হয়ে ভোটে লড়বেন। এ নিয়ে মুম্বাইতে নাকি বৈঠকও হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে আলোচনায় নেই এই চার তারকাও।

loading...