loading...

গৌরীপুরে মোরগ দু’বার জবাইয়ের পরও মরেনি ! মানুষ ভাবছে অলৌকিক ঘটনা

0

গৌরীপুর ব্যুরো অফিস :দু’বার জবাই করার পরও মরেনি মাজারে মানত করা মোরগ। পরে সেই মোরগ দেয়া হলো স্থানীয় এক মাজারে। বেঁচে যাওয়া এ মোরগ দেখতে মাজারে ভীড় করছেন উৎসুক শত শত স্থানীয় নারী ও পুরুষ। এটাকে অলৌকিক ঘটনা ভেবে মাজারে নগদ টাকাও দিতে শুরু করেছেন অনেকেই। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারী)২০১৯ সকালে এ ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার বোকাইনগর ইউনিয়নের মামুদনগর গ্রামে আব্দুস সালামের বাড়িতে।

আব্দুস সালামের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম জানান, পারিবারিক সমস্যা থেকে মুক্তি লাভের আশায় এ উপজেলার বোকাইনগর অবস্থিত নিজাম উদ্দিন আউলিয়ার মাজারে একটি মোরগ মানত করেছিলেন তার মা। সদ্য প্রয়াত মায়ের জন্য দোয়া-মাহফিল করতে শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) সকালে জেঠাতো বোন ইতি ও ভাতিজি স্বপ্না দু’জনে মিলে সেই মানত করা মোরগ দা দিয়ে জবাই করে। জবাই করার পর মোরগটি মরেনি, দাঁড়িয়ে পরে। আবার জবাই করলে পুনরায় মোরগ দাঁড়িয়ে পড়ে। দু’বার জবাইয়ের মাধ্যমে গলার চামড়া, শ্বাসনালী ও খাদ্যনালী কাটা হলেও মোরগটি মরেনি। পরে ওইদিন দুপুরে মোরগটিকে বোকাইনগর নয়াপাড়া এলাকায় আজম শাহ’র মাজারে রেখে আসেন তার বোন ইয়ামিন।

এদিকে এঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় শত শত মানুষ মাজারে আসছেন ওই মোরগটিকে দেখার জন্য। এটাকে অলৌকিক ঘটনা ভেবে অনেকেই নগদ টাকাও প্রদান করেছেন মাজারে। শনিবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মোরগটিকে মাজারে রাখা হয়েছে।

আজিম শাহ মাজারের খাদেম ছাইদুল ইসলাম ও সিরাজ পাগলা সাংবাদিকদের জানান, ওই মোরগটি মাজারে জন্য মানত করা হয়েছিল। তাই দু’বার জবাই করার পরও মোরগটি মরেনি।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসের কর্মকর্তা মফিজ উদ্দিন জানান, ঘটনাটি শুনার পর তিনি স্থানীয় আজিম শাহ’র মাজারে গিয়েছিলেন মোরগটি দেখার জন্য। এসময় দেখেন মোরগটির শুধু গলার চামড়া কাটা হয়েছে। শ্বাস ও খাদ্যনালী অক্ষত রয়েছে। এ কারনে মোরগটি বেঁচে রয়েছে। এটা অলোকিক কোন ঘটনা নয়।

 

loading...
%d bloggers like this: