loading...

“কবর দিও এভাবে”

0

কবি: মো: আনসার উদ্দিন ভূঞা (পারভেজ)

দাদা বলল পুকুরের দক্ষিণ পশ্চিমে
উনার বাপের কবর, মায়ের কবর উত্তর পশ্চিমে।
দাদার চাচার কবর, বাড়ির পিছনে জঙ্গলের উত্তর কোণে ঝোপ ঝাড়ের নিচে।
প্রতিটি কবরের সাথে, পূর্ব পুরুষদের কবর রয়েছে।
দাদা দাদির কবরস্থান বাড়ির দক্ষিণে
গরুর ঘরের পশ্চিমে,রাস্তার দক্ষিণে।

বিটপাকা, তার উপর মোরগ মুরগী ও ছাগলের অবস্থান,
কৃষিক্ষেতে পরিণত হয়েছে দাদার বাপসহ অনেক কবরস্থান
দাদার চাচা- চাচীদের কবরস্থান টয়লেট ও গাছগাছড়ার ছড়াছড়ি,
বাবার কবর দাদা প্রতিষ্ঠিত বীরকামাটখালী জে.বি উচ্চবিদ্যালয়ের পাশে
পারিবারিক পরিকল্পিত কবরস্থানে।

দাদার ভাই ভাবীরা পেয়েছে বাবার সাথে ঠাঁই
দাদার নিজের কবরস্থানে নিজের ঠাঁই নাই।
আমার বাবা আছে ওখানে শুয়ে,
আমাদের সকলকে নিয়ে যেতে হবে ঐখানে বয়ে।

আমাদের গ্রামে পারিবারিক কবরস্থান নাই বল্লেই চলে,
প্রতিটা গ্রাম ও ইউনিয়নে কবরের এই অবস্থা বলে।
বর্তমান বাংলাদেশে পরিকল্পিত কবরস্থানের খুব অভাব,
সুন্দর পরিকল্পিত কবরস্থান করার মানসিকতার আরো বেশি অভাব।

দাদার কথা আজও মনে পড়ে
পরিকল্পিত কবর না হলে সেই কবর কত অত্যাচারে পড়ে।
সবাই একসাথে হও, সকল কবরস্থান হেফাজত কর
আমার কিছু দাবি সবাই একমত পোষণ কর।

আমি যখন মারা যাব, আমায় গোসল দিও,
সেখানে চারজন হাফেজ , দুইজন মাওলানা নিও।
তোমরা আমাকে সুন্দর করে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কর,
কাফন করার পূর্বে বুকে হাত দিয়ে সফল সূরা পড়ো।

রুহটা ফিরে যায় যেন সুন্দর মনে
কাপড় পরিয়ে দিও তোমরা পবিত্র ছয়জন সুন্দর মনে।
সাদা কাপড় পরিয়ে, হাফেজ চারজন নিও কাধে
জানাযা পরিয়ে দিও কবর সরকারি কবরে সাধ্য যদি বাধেঁ।

প্রতিটা ইউনিয়নে চাই একটি সরকারি কবরস্থান,
কবরের সাথে থাকবে সরকারি মসজিদের অবস্থান।
থাকবে চারজন হাফেজ, দুইজন মাওলানা
চারজন কবর খোদাইকারী পিয়ন থাকবে সবার জানা।

ইউনিয়ন মসজিদ থাকবে একটা বড়,
আনাচে কানাচে একটি কবর ও হবেনা,
জোড় দিয়ে ধর।

loading...
%d bloggers like this: