loading...

মালদ্বীপে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিকরা পাচ্ছে না নিয়মিত কোম্পানি থেকে নির্ধারিত বেতন

0
মনির হোসেন, মালে, মালদ্বীপ প্রতিনিধি:
মা মাটি ও রক্তের বন্ধনের মায়া ত্যাগ করে  পরিবার,দেশ,জাতি ও অর্থসামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ভিটা মাটি বিক্রি করে,কড়া সুদে ঋন নিয়ে দূমুঠো ভাত আর স্বচ্ছল জীবন যাপনের আশা নিয়ে মালদ্বীপ জাওসা কনস্ট্রাকশন কোম্পানীতে কর্মরত আছেন প্রায় অর্ধশত বাংলাদেশি শ্রমিক।
কিন্তু ভাগ্য যে উনাদের সহায় নয় তাইতো দিন রাত হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রম করেও প্রাপ্য বেতন পাচ্ছে না বাংলাদেশী শ্রমিকরা । জানা যায় জাওসা কোম্পানী গত ডিসেম্বর ২০১৭ হতে জুন ২০১৮ পর্যন্ত এখনো বেতন দিচ্ছে না বাংলাদেশী শ্রমিকদের। কোম্পানি দিচ্ছে দিবে বলে তারিখের পর তারিখ পার করছে, কোম্পানীর নিকট বার বার অনুরোধ করা স্বত্বেও,কান্না কাটি করেও বেতন আদায় করতে পারছেন না শ্রমিকরা।
শেষ পর্যন্ত শ্রমিকরা মালদ্বীপস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস এর মান্যবর রাষ্ট্রদূত মহোদয় পর্যন্ত অভিযোগপত্র ও দিয়েছেন কিন্তু কোন লাভ হয়নি বলে জানান জাওসা কোম্পানীর কর্পোরেট অফিসে কর্মরত বাংলাদেশি মনজুর রহমান এবং উনিও একই পরিস্থিতির ভুক্তভোগী ৷
তিনি বলেন কেউ কেউ কড়া সুদে ঋণ তোলায় সময়মত না দিতে পারায় বাড়ী ঘর হারানোর পথে অনেক শ্রমীকরা।তিনি আরো বলেন এছাড়া কর্মরত বাংলাদেশিদের ভিসা কার্ড কোম্পানী ঠিক করেনা,কারো কারো আসার পর থেকেও ভিসা বা কার্ড পাননি,কেউ আবার ২/৩ বছর ওয়ার্ক পারমিট কার্ডের মেয়াদ শেষ হলেও নবায়নকৃত কার্ড পাননি।
এজন্য দেশে যেতেও পারছেন না,গুরুতর অসুস্ত হলেও কোম্পানী দেশে পাঠায়নি,পূর্বে এরকম দুজন বাংলাদেশি অসুস্থাজনিত কারনে দেশে যেতে না পারায় এখানেই মৃত্যুবরণ করেন।
কোম্পানীতে কর্মরত অসহায় শ্রমিকদের প্রত্যাশা বাংলাদেশ দূতাবাস যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন এবং মালদ্বীপে বাংলাদেশি কমিনিউটি  সংগঠনগুলো উনাদের সহযোগীতায় ও সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্যে দ্রুতই প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। সবশেষ, সকলের সহযোগীতা সৃষ্টি হওয়া সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে শ্রমিককরা মালদ্বীপেই তাদের স্বপ্নের বাস্তবায়ন করতে দৃঢ় আগ্রহী।
loading...