loading...

বিশ মিনিটেই হিরো থেকে জিরো

0

অনিশ্চয়তার খেলা ফুটবলে মুহূর্তেই বদলে যায় দৃশ্যপট। ফুটবল আপনাকে ভাসাতে পারে আনন্দে আবার মুহূর্তেই ম্লান করে দিতে পারে সেই আনন্দ। ঠিকই তেমনই এক ঘটনার সাক্ষী হলো রাশিয়া বিশ্বকাপ। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে দলকে খাদের কিনার থেকে টেনে তুলেও শেষ পর্যন্ত দলের হারে খলনায়ক বনে গেছেন ব্রাজিলিয়ান বংশোদ্ভুত রাশিয়ান ফুটবলার মারিও ফার্নান্দেজ।

স্বাগতিক দল হিসেবে রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়েছিল রাশিয়া। সেই রাশিয়াই স্পেনকে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলবে তা হয়তো ভাবেনি খোদ রাশিয়ানরাও। কিন্তু ভাবনায় কী আসে যায়। বাস্তবেই তা করে দেখিয়েছে দলটি। উঠে গিয়েছিল বিশ্বকাপের শেষ আটে।

কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াইয়ে রাশিয়ার প্রতিপক্ষ ছিল ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচটিতে আন্ডারডগ হিসেবে খেলতে নামলেও প্রথম গোলটি পায় রুশরাই। কিন্তু সেই গোল পরিশোধ করে ম্যাচে ফিরতে সময় নেয়নি ক্রোয়েশিয়া। নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষে খেলার স্কোর যখন ১-১ তখন অতিরিক্ত সময়ে গড়ায় ম্যাচটি। আর অতিরিক্ত সময়ে গোল করে এগিয়ে যায় ক্রোয়েশিয়া। তবে নাটকীয়তার অনেকটাই বাকি ছিল ম্যাচটি ঘিরে।

পিছিয়ে পড়ে গোলের জন্য মরিয়া হওয়া রাশিয়া খুঁজতে থাকে সমতায় আসার সুযোগ। সেই সুযোগও পেয়ে যায় তারা। খেলার ১১৫ মিনিটের সময় অসাধারণ এক হেডে ক্রোয়েশিয়ার জালে বল জড়িয়ে মুহূর্তেই হিরো বনে যান ফার্নান্দেজ। ফলে ২-২ সমতায় অমীমাংসিত খেলা। তাই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণে নিতে হয় টাইব্রেকারের সহায়তা।

রাশিয়া বিশ্বকাপে এই ম্যাচের আগে মোট তিনটি ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করেছিল টাইব্রেকার। তবে শুরুতে শট নেওয়া দলটি জিততে পারেনি একটি ম্যাচও। ক্রোয়েশিয়া- রাশিয়া ম্যাচে স্পট কিকের প্রথম সুযোগটি পায় রুশরা। তাইতো জিততে হলে তাদের ভাঙতে হতো আগের তিন ম্যাচের রেকর্ড। কিন্তু পারেনি রাশিয়া। অতিরিক্ত সময়ে গোল করে দলকে সমতায় ফেরানো ফার্নান্দেজ বিশ মিনিটের ব্যবধানেই এবার বনে গেলেন খলনায়ক। তার লক্ষ্যভ্রষ্ট স্পটকিকেই বিদায় ঘণ্টা বাজে র‌্যাংকিং ৭০ নম্বরে থাকা দলটির।

ফলে হিরো বনে যাওয়া ফার্নান্দেজকে দেখতে হলো মুদ্রার অন্যদিক। দলকে সেমির স্বপ্ন দেখিয়েও শেষ পর্যন্ত সেই স্বপ্নকে ব্যর্থতায় রূপান্তরের কাণ্ডারিই তিনি।

loading...