loading...

হালুয়াঘাটে আচমকা কাঁদা বৃষ্টি! কৌতুহলী জনতা

0

ওমর ফারুক সুমন, হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) থেকেঃ

বৃষ্টির সাথে কাঁদা। একেবারেই বিরল ঘটনা। যদিও অবিশ্বাস্য মনে হবে কিন্তু বাস্তবে এমনি একটি ঘটনা ঘটেছে। কাঁদা মিশ্রিত বৃষ্টিতে পুরো হালুয়াঘাট ছেয়ে গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানালেন কাঁদা বৃষ্টি নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মতবাদ। কেউ অবাক হয়েছেন! আবার কেউ বিশ্বাস করতে গিয়েও বারংবার ভাবছেন! হয়তো ভারসাম্যহীন প্রকৃতিই এর জন্যে দায়ী এমনটিও মনে করছেন কেউ কেউ। আবার কেউ কেউ হিসাব নিকাশ করছেন যে, কেমনে উহা সম্ভব? অসম্ভব মনে হলেও বাস্তবে তাই ঘটেছে।

অনেকের কাছে রাখা সংরক্ষিত ছবিই মিলেছে তার প্রমান। গত বৃহঃপতিবার রাত আনুমানিক এগারোটার সময় হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হলে ঘটে এই ঘটনা। রাতে ঘটনাটি ঘটায় সকলের নজরে না আসলেও সকাল বেলায় বিষয়টির চারিদিকে আলোড়ন ঘটে যায়। সরেজমিনে দেখা যায়, গাছের পাতায় কাঁদা, উঠানে কাঁদা, খোলা আকাশের নিচে যারা যা কিছু রেখেছিলো সবকিছুতেই কাঁদা। সাদা হয়ে আছে উঠান, সাদা হয়ে আছে আসবাব পত্র। গাছের পাতার মাঝেও লেগে আছে সাদা কাঁদা মাটির প্রলেপ।

খয়রাকুড়ি গ্রামের গৃহিণী রুমা বলেন, আমি সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠেই বাহিরে গিয়ে দেখি, বাহিরে রাখা সমস্ত পাতিলে কাঁদা মাটির প্রলেপ লেগে আছে। বৃষ্টিতে ভিজা মোটর সাইকেলটি একদম কাঁদায় সাদা হয়ে আছে। এরকম ঘটনা এর আগে ঘটেনি কেউ। কালিয়ানীকান্দা গ্রামের প্রতিভা দারিং বলেন, আমাদের বাড়ির আশপাশের এলাকার সকল গাছের পাতায় কাঁদা জমে থাকতে দেখে অবাক হয়েছি। তিনি জানান, এরকম ঘটনা আগে দেখিনি। পুরাতন বাস স্ট্যান্ড এলাকার এক হোটেল বয় জানান, আমার মা পাতিলে পানি ভরে রেখেছিলো।

সকালে দেখে পুরো পানিই কাঁদা। সাংবাদিক হাতেম আলী বলেন, আমি মোটরসাইকেল বাহিরে রেখেছিলাম। যা বৃষ্টিতে কাঁদা মেখে পুরো সাদা হয়ে গেছে। হালুয়াঘাট মহিলা কলেজের অধ্যাপক এবিএম আমিনুল হক বলেন, আমি সকালে বাহিরের সকল জিনিসপত্রে কাঁদা লেগে থাকতে দেখে চিন্তিত হয়েছি। হালুয়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন তার গাড়িতেও সকালে কাঁদার প্রলেপ দেখে অবাক হয়েছেন। ঘটনার পরদিন শুক্রবার সকালে ঘটনাটি নিয়ে সকলের মাঝে আলোচনার ঝড় উঠে। সকলেই হতবাক হয়েছেন এই ঘটনাটি ঘটায়। যার যৌক্তিক ব্যাক্ষা কারও জানা নেই।

loading...