loading...

পূর্বধলায় চেয়ারম্যান সমর্থকদের এমপির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল

0

শিমুল শাখাওয়াতঃ

নেত্রকোনার পূর্বধলায় পুলিশ প্রহরায় উপজেলা সমন্বয় কমিঠির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে গত বৃহস্পতিবার (৩১ মে) সকালে উপজেলা সমন্বয় কমিটির মাসিক সভায় সংঘর্ষের আশংকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে প্রশাসন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, স্থানীয় সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল ও উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজনের মধ্যে বিরোধকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষের আশংকায়  পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যানের অভ্যন্তরীন কোন্দলে এমপি সমর্থকরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে সমন্বয় কমিটির সভায় আসতে দিবেন না এমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে সকাল থেকেই উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে চেয়ারম্যান সমর্থকের কয়েক হাজার নেতা-কর্মী উপজেলা সদরে অবস্থান নেয়।

আর এমপি সমর্থকরা পূর্বধলা বাজারে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেয়। এ সময় উভয় পক্ষে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করে।
এ দিকে যথা সময়ে সভা কক্ষে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা সমন্বয় কমিটির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুজন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব নমিতা দে, সদস্য হিসেবে উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের সরকারি কর্মকর্তা ও বিশকাকুনী ই্উনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন উপস্থিত হলেও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও অন্যান্য ইউপি চেয়ারম্যানরা সভায় অংশ গ্রহণ করেননি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নমিতা দে জানান, আইনশৃ্খংলা রক্ষায় উপজেলা পরিষদ চত্বর ও এর আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল। সমন্বয় সভাকে কেন্দ্র করে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা সমন্বয় কমিটির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, আমি নির্ধারিত সময়ে সভা কক্ষে উপস্থিত হই। সভায় ইউএনওসহ অন্যান্য কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। সভার নোটিশে সকল ইউপি চেয়ারম্যান স্বাক্ষর করার পরও এমপি’র ভয়ে চেয়ারম্যান সাহেবরা সভায় উপস্থিত হতে পারেননি।খলিশাউড় ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমার সন্তান অসুস্থ থাকায়  আসতে দেরী হয়েছে, এসে দেখি সভা শেষ। সভাশেষে চেয়ারম্যান সমর্থকরা পরিষদ চত্বরের আশে পাশের সড়কে পুলিশী বাধার মুখেও এমপির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করে।

loading...
error: Content is protected !!