loading...

নাটোরে চুরি ঠেকাতে লিচু গাছে বৈদ্যুতিক ফাঁদ

0

নাটোর প্রতিনিধিঃ

লিচুর গাছে চুরি ঠেকাতে পাহারার পরিবর্তে এবার বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতেছেন এক গাছের মালিক। আবার জনসচেতনতায় সেখানে টানিয়ে দিয়েছেন সাইনবোর্ডও।

তাতে লিখেছেন ‘সাবধান! এই লিচু গাছের আশে-পাশে এবং লিচুর গাছে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া আছে। বিঃদ্রঃ কেউ যদি মারা যায় কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।’ বিপজ্জনক এমন কাজটি ঘটেছে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার মালি রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায়।

স্থানীয়দের দাবি, গাছের মালিকের এটা হটকারী সিদ্ধান্ত এবং খোলা তারের ওই ফাঁদে জড়িয়ে যেকোনো সময় প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্মরত পোর্টার ঈশ্বরদীর পাকশির বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক চাকরির সুবাদে দীর্ঘদিন থেকে মালি রেল স্টেশনের পাশে সরকারি জমিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন।

তার বাড়ির পাশের একটি লিচু গাছ থেকে সম্প্রতি লিচু চুরি হয়। তাই লিচু চুরি ঠেকাতে আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে জুয়েল লিচু গাছে বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতেছেন।

স্থানীয় সোনাপাতিল মহল্লার রবিউল আলম, জালাল উদ্দিন ও পেড়াবাড়িয়া মহল্লার লিমন জানান, তারা ওই লিচু গাছে বৈদ্যুতিক তার জড়ানো দেখেছেন। গাছটির পাশ দিয়ে শিশুরাসহ সাধারন মানুষ চলাচল করে। গাছে জড়ানো বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে যেকোনো সময় প্রাণহানির মতো বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এমনকি ভুল করে গাছের মালিকের পরিবারের সদস্যরাও দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন বলেও জানান তারা। মালি রেল স্টেশনে দায়িত্বরত ওয়েম্যান সানোয়ার কবীর জানান, তার এমন কাজ দেখে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, পুরো লিচু গাছ জুড়ে খোলা তার প্যাঁচানো রয়েছে। পাশে একটি ডালে সতর্কতামূলক একটি সাইনবোর্ড সাঁটানো রয়েছে।

এ ব্যাপারে বাগাতিপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, লিচু গাছে পাহারার ব্যবস্থা করতে পারেন। কিন্তু বৈদ্যুতিক ফাঁদ পাতা আইনসিদ্ধ নয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

গাছের মালিক জুয়েলের বড় ভাই জিয়া জানান, লিচু চুরি ঠেকাতে এমন দৃশ্যমান বৈদ্যুতিক তার পেঁচিয়ে সাইনবোর্ড দেয়া হয়েছে।

loading...