loading...

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শীর্ষ মাদক সেবী ও ব্যবসায়ীরা গ্রেপ্তারের ভয়ে আত্মগোপনে !

0

তারেক অাহম্মেদ-চাঁপাইনবাবগঞ্জ ব্যুরো চীফ:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে একযোগে দেশ ব্যাপী শুরু হয়েছে মাদকবিরোধী অভিযান। তারি অংশ হিসেবে পুলিশ, র‌্যাব-৫ যৌথ ভাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জেও মাদকবিরোধী এ অভিযান শুরু করছে।

এরি মাঝে এ কয়েকদিনের অভিযানে এক মাদক বিক্রেতা নিহতও হয়েছেন র‌্যাব-৫’র সাথে বন্দুক যুদ্ধে। শহসস্রাধিক মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীকে বিভিন্ন ধরণের মাদকসহ গ্রেফতার ও সাজা প্রদানও করা হয়েছে। অভিযানের ফলে আস্তে আস্তে সাধারণ জনগণের মাঝে আস্থা ফিরে এসেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের প্রতি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশ সুপার টি এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম বলেন,গত কিছুদিন ধরে আমাদের পুলিশ ও গোয়েন্দা বাহিনীর নির্দেশ দিয়েছি জেলার মাদক বিক্রেতাদের ধরে আইনের আওতায় নিয়ে এসে শাস্তি দেবার।

পাশাপাশি র‌্যাবও অভিযানে কাজ করছে মাদকসেবীদেরও ধরে বিভিন্ন মেয়াদে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সাজা প্রদান ও জরিমানাও করা হচ্ছে।

তিনি আরো জানান,ইতোমধ্যে শহরে ও শহরের বাইরের উপজেলা থেকে একাধিক মাদকবিক্রেতা কে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ সুপার আরো জানান, আপনারা সাধারণ নাগরিক পুলিশ অথবা গোয়েন্দা বাহিনীর সদস্যদের তথ্য দিয়ে সহায়তা করুণ। র‌্যাবকেও তথ্যদিন।

সকলের সম্মলিত প্রচেষ্টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জকে মাদকের ভয়াল গ্রাস থেকে উদ্ধার করা সম্ভব। মোজাহিদুল ইসলাম আরো বলেন, ইতোমধ্যে ধরপাকড় এর কারণে কিছু মাদক ব্যবসায়ী আত্মগোপণে চলে গেছেন।

আমি বলব তারা যেন আত্মগোপণেই থেকে যায়। প্রকাশ্যে এসে মাদকের ব্যবসা করলে তা কোন ভাবেই মেনে নেব না, হতে দেব না।

কাজেই আমি বলতে চাই, মাদকের ব্যবসা ছেড়ে সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুন।

মঙ্গলবার সন্ধার পর চাঁপাইনবাবগঞ্জের বটতলাহাট, স্টেশন পট্টি, ঢাকা বাস স্ট্যান্ড, মহানন্দা বাস স্ট্যান্ড, শান্তি মোড়, আরামবাগ, আজাইপুর, পিটিআই রোড, বারঘরিয়া, ফিল্টেরহাট, মেলার মোড়, মহারাজপুর ঘোড়া স্ট্যান্ড, লালা পাড়া, বকুলতলা, রামচন্দ্রপুর হাট, চকলামপুর, ক্যাইপসাপাড়া, সরকারের মোড় পর্যন্ত বিভিন্ন মাদকের স্পটে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কোথাও কোন রকম মাদক বিক্রেতাকে লক্ষ করা যায় নি।

অথচ কিছুদিন আগেই এ সব স্থানে হাত বাড়ালেই বিভিন্ন ধরনের মাদক পাওয়া যেত। এলাকার অনেক মানুষকে দেখা গেছে এ মাদক বিষয়েই আলাপ করতে। চায়ের দোকানগুলোতে সন্ধার পর যে লোকে লোকারণ্য থাকত এখন যেন খাঁ খাঁ করছে।

এলাকার অনেক মানুষকেই পুলিশ র‌্যাবের এ অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছেন। অনেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাঁরাও চাই এ অভিযান যেন প্রতিনিয়ত অব্যাহত থাকে। তাহলে কেউ আর মাদকের ব্যবসা করতে সাহুস পাবে না।

তাই মাদক নির্মূলে সকলের সহযোগীতা এখন একান্ত কাম্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।

loading...