loading...

কেন্দুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হতে চান “ফয়সাল জাহান তমাল”।

0

বিশেষ প্রতিনিধি :-

কেন্দুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হতে চান নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া থানার কোনাপাড়া গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মনেওয়া ফয়সাল জাহান তমাল।আওয়ামী পরিবারে বেড়েওঠা তমাল ছোটবেলা থেকেই বাবার সাথে যেতেন আওয়ামীলীগ এর সকল কার্যক্রমে।বর্তমানে তিনি কেন্দুয়া থানা ছাত্রলীগের একজন সকৃয় কর্মী।কেন্দুয়া থানা আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের প্রতিটি কার্যক্রমে রয়েছে তার  সকৃয় অংশগ্রহণ।

তার বাবা মৃত আবুল খায়ের ছিলেন কেন্দুয়া উপজেলার ৯ং নওপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ সাবেক সভাপতি,সাবেক নওপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক। তার মামা মো:সনজু তালুকদার সাবেক নওপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ছিলেন। তার মেজু মামা রেখাতুল আমিন তালুকদার সাবেক নওপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুন্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ও তার ছোট মামা জুয়েল আমিন তালুকতার বতর্মান কেন্দুয়া উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়ন কৃষিকলীগের সিনিয়র যুন্ম সাধারণ সম্পাদক।তার মামাত ভাই হিমেল আহমেদ তালুকদার বতর্মান কেন্দুয়া উপজেলা আওয়ামী তরুণলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দুয়া উপজেলা প্রজন্মলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

তার খালাত ভাই রাফউল ইসলাম রাফি ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিট। তার খালাত ভাই মো: জিয়াউল হুদা সোহাগ ময়মনসিংহ শহর ছাত্রলীগের সদস্য ও সাংগঠনিক সম্পাদক ময়মনসিংহস্ত কেন্দুয়া উপজেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতি। তিনি জরিত আছেন বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে।যেমন তিনি সম্মানিত সদস্য নওপাড়াস্ত আঞ্চলিক ছাত্রকল্যাণ সমিতি,সম্মানিত সদস্য নওপাড়া ইউনিয়ন কোনাপাড়া গ্রামের ফুটন্ত গোলাপ ক্লাবের। তিনি কোনাপাড়া আবুল খায়ের সৃস্তি সংসদের উপদ্যেষ্টা ও কোনাপাড়া বঙ্গবন্ধু ক্লাবের উপদ্যেষ্টা।এছাড়াও তিনি অসংখ্য জনকল্যাণ মূলক কাজের সাথে জরিত।

এক প্রশ্নের জবাবে কেন্দুয়া থানা ছাত্রলীগের সাধরাণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ফয়সাল জাহান তমাল বলেন আমি প্রতিজ্ঞা করতেছি যে, স্বাধীন বাংলার স্থপতি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জন্য সর্বদা জীবন বাজী রাখব।আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণীত হয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ কেন্দুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি এবং দলের দুঃসময়ে অনেক অত্যাচার নির্যাতন সৈয্য করেও দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকান্ডে ছিলাম,আছি থকবো।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ভিষন ২০২১ ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র ও ঘোষনাপত্র মোতাবেক সকল নিয়মনীতি মানিতে বাধ্য থাকিব।

তার মত এমন মাঠ পর্যায়ে সকৃয় লোকই কেন্দুয়া থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন কেন্দুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের মাঠপর্যায়ের কর্মী বৃন্দ।

loading...
%d bloggers like this: