loading...

পীরগঞ্জে সেবা ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সিজারে রোগীর মৃত্যু- মালিকসহ ডাক্তার লাপাত্তা- ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশের দাফনকার্য সম্পন্ন

0

ঠাকুরগাও প্রতিনিধিঃ

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার সেবা ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে গর্ভবতী মহিলা সিজার করিয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ায় বেগতিক অবস্থায় রোগীকে বাড়িতে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেন। রোগীর লোকজন ওষুধপত্র আর সেবার মধ্যদিয়ে ঐ ক্লিনিকে আবার নিয়ে আসে। অবস্থার অবনতি দেখে রোগীর লোকজনকে দ্রুত দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরামর্শ দেন। রোগী নিয়ে দিনাজপুরে যাওয়ার পথে গর্ভাবতি রুনা বেগমের মৃত্যু ঘটে ।

মৃত্যুর খবর এলাকায় পৌছালে ক্লিনিকের মালিক ও ডাক্তার গাঁ ঢাকা দিয়ে লাপাত্তা হয় এবং মৃত রোগীর লোকজনদের সাথে রফাদফা করে। তৎসঙ্গে প্রশাসন, স্থানীয় নেতা ও সাংবাদিককে মেনেজ করে লাশের ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশের দাফন সম্পন্ন করে। জানা যায়, পীরগঞ্জ উপজেলার কেউটগাও গ্রামের জনৈক ব্যাক্তির কন্যা ও হরিপুর উপজেলার মহারাজা গ্রামের সফিকুলের স্ত্রী রুনা বেগমের প্রসব বেদনা উঠলে তার পরিবারের লোকজন জগথা মহল্লার নানার বাড়িতে নিয়ে আসে।

তারা পীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করার চেষ্টা করা হলে হাসপাতালে দায়িত্বরত স্টাফ ও ক্লিনিকের দালাল কমিশনের আশায় ঐ ক্লিনিকে ভর্তি করে। ২০ শে ডিসেম্বর রুনা বেগমকে সিজারের জন্য সেবা ক্লিনিকে ভর্তি হলে ঐ ক্লিনিকেই পীরগঞ্জ স্বাস্খ্য কমপ্লেক্সের কসাই ডাক্তার নজরুল রুনা বেগমের সিজার করে রোগীর বেগতিক অবস্থা ঘটায়। ২০ শে ডিসেম্বর থেকে ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোগীর অবনতি ঘটলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫ শে ডিসেম্বর দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য পরামর্শ দেন।

উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে, সেবা ক্লিনিকের মূল হোতা ফারুককে মোবাইল ফোনে উক্ত বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে তিনি বললেন বর্তমানে আমি নিজ বাড়ি নিলফামারি জেলার সৈয়দপুর উপজেলায় আছি। তার কাছে রোগীর বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ঐ রোগীর মৃত্যু সম্পর্কে বলেন, রুনা বেগমের মৃত্যুর জন্য তাদের পরিবারের লোকেরাই দায়ী । এ বিষয়ে পীরগঞ্জ উপজেলার গর্ভবতী মহিলারা কসাই ডাক্তার নজরুলের কান্ড শুনে আতঙ্কে বিরাজ করছেন।

loading...
error: Content is protected !!