loading...

হালুয়াঘাটের সীমান্তে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী গারো সম্প্রদায়ের বড়দিন উদযাপন

0

হালুয়াঘাট(ময়মনসিংহ)প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট সীমান্তের খ্রীষ্ট ধর্মালম্বী ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী গারো সম্প্রদায়ের মাঝে চলছে বড়দিনের আমেজ। একই সাথে গারো এলাকায় বিরাজ করছে উৎসবমুখর পরিবেশ। গারো সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হচ্ছে বড়দিন। তাছাড়া এখানে রয়েছে চার্চ অব বাংলাদেশ, ব্যাপ্টিস্ট ও ক্যাঠলিক সম্প্রদায়ের অনুসারিরাও। সারাদেশের ন্যায় ময়মনসিংহ সীমান্ত এলাকা হালুয়াঘাটের ঝলঝলিয়া, বিড়ই ডাকুনি, বেতকুড়ি সহ পাশ্ববর্তী ধোবাউড়া, দুর্গাপুর,শ্রীবর্দী, ঝিনাইগাতি, নালিতাবাড়ি এলাকাতেও প্রায় লক্ষাধিক গারো দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করছে। গারোদের ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়েছে আনন্দের ছোঁয়া।

প্রার্থনা, গান ও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হলো বড়দিন। নানান রঙে সাজানো হয়েছে বাড়িঘর। বড়দিনের নানা আয়োজনে সরগরম ছিল গারোপাড়াগুলো। সোমবার হালুয়াঘাটের ধর্মপল্লী হিসেবে খ্যাত ঝলঝলিয়ার গীর্জা পর্যবেক্ষন করলে দেখা যায় আশে পাশের হাজারো খ্রীষ্টধর্মালম্বীদের ভিড়। ব্যাস্ত রয়েছে তারা প্রতীকী গোশালা, কীর্তন ও একে অপরের মাঝে শুভেচ্ছা বিনীময় মধ্য দিয়ে। সাজানো হয়েছে রঙিন বাতি, ফুল আর প্রতীকী ক্রিসমাস ট্রিতে। সেই সঙ্গে চলেছে বড়দিনের গানবাজনা।

মানবশান্তি আর মানবকল্যানের মূলমন্ত্র সামনে রেখে এমনি করে ময়মনসিংহের সীমান্ত এলাকার খ্রীষ্টভক্তরা দিনটিকে উদযাপন করেন। এ বিষয়ে ঝজঝলিয়া ধর্মপল্লীর পেরিস কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান রঞ্জিত রুগা বলেন, উক্ত ধর্মপল্লীর অধীনে মোট ২২ টি গ্রাম রয়েছে। এ সকল গ্রাম থেকে খ্রীষ্ট ভক্তরা তাদের মংগলের জন্যে এখানে প্রার্থনা করতে আসেন। তিনি বলেন, যিশুর আগমন উপলক্ষে এ দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ দিনকে ঘিরে এক-দু মাস পুর্ব থেকেই খ্রীষ্টধর্মালম্বীরা প্রস্তুতি নিয়ে থাকেন।

এই দিনে সকলের মাঝে সামাজিক বন্ধন মজবুত হয় বলে তিনি মনে করেন। উক্ত ধর্মপল্লীর ফাদার অঞ্জন জাম্বিল বলেন, উক্ত ধর্মপল্লীর অধীনে হালুয়াঘাট-নালিতাবাড়ি মিলে মোট ২৫ টি গ্রাম কাউন্সিল রয়েছে। কয়েকহাজার পরিবার রয়েছে এর অধীনে। তিনি বলেন বাইবেল মংগল সমাচার অনুসারে ইশ্বর তার একমাত্র পুত্র সন্তানকে পাঠালেন মানুষের কাছে এবং তিনি জন্ম নিলেন মা মারিয়ার কোলে। তার নাম যীশু। এই যিশু খ্রীষ্টকে কেন্দ্র করেই খ্রীষ্ট বিশ্বাসীরা বড়দিন উদযাপন করে থাকে প্রতিটি বছর।

loading...