loading...

বদলগাছীর ঐতিহাসিক পাহাড়পুর জয়পুরহাট রাস্তাটি সংস্কার প্রক্রিয়া নিয়ে বিড়ম্বনা

0

প্রতিনিধি বদলগাছী (নওগাঁ) ঃ
নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার ঐতিহাসিক পাহাড়পুর হয়ে জয়পুরহাট সংযোগ এই মহাসড়কটির সংস্কার প্রক্রিয়া নিয়ে আবারও নানা বিড়ম্বনা দেখা দেওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী ।কয়েক বছর থেকে এই জনগুরুত্বপূর্ন রাস্তাটিতে ব্যাপক আকারে খাল খন্দের সৃষ্টি হয়ে পড়ায় এখন রাস্তাটি জনগণের কাছে একটি মরণ ফাঁদে পরিনত হয়েছে।

খোজ নিয়ে জানাযায়, কয়েক বছর আগেও এই জনগুরুত্বপূর্ন রাস্তাটি বদলগাছী হইতে জয়পুরহাট পর্যন্ত এলজিডি অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে ছিল। এলাকাবাসীর অভিযোগ এলজিডির অধীনে থাকাবস্থায় সড়কটি মাঝে মধ্যেই সংস্কার করা হতো। পরবর্তীতে এই আ লিক রাস্তাটি সড়ক ও জনপদ বিভাগে হস্তান্তর করা হয়। হস্তান্তর করার প্রায় দু’বছর অতিবাহিত হলেও সড়ক ও জনপদ বিভাগ এই জনগুরুত্বপূর্ন রাস্তাটির কোন প্রকারের সংস্কার কাজ করেননি সড়ক ও জনপদ বিভাগ।

সড়ক ও জনপদ বিভাগ থেকে বলা হয়েছিল চলতি ডিসেম্বর মাসের মধ্যে এই রাস্তাটি প্রশস্ত আকারে সংস্কারের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু ইতি মধ্যেই নওগাঁ জেলায় সড়ক ও জনপদ বিভাগে কয়েকটি রাস্তার প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হলেও বদলগাছী ঐতিহাসিক পাহাড়পুর হয়ে জয়পুরহাট সংযোগ এই মহা আ লিক রাস্তাটির অনুমোদন দেওয়া হয়নি।জনগুরুত্বপূর্ন এই রাস্তার পার্শ্বে অবস্থিত দেশের উন্নতম ঐতিহাসিক স্থান পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার ও যাদুঘর। আর এই ঐতিহাসিক পাহাড়পুরে সারা দেশ থেকে আগত দর্শনার্থী সহ বিদেশী পর্যটকরা বিধ্বস্থ পথে চলাচলে নানা বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। তাই এলকাবাসীর দাবী এই রাস্তাটি জরুরী ভিত্তিতে সংস্কার করার।

পাহাড়পুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান কিশোর জানান, রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসী রাস্তাটি সংস্কারের জন্য জরুরীভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।
এবিষয়ে নওগাঁ জেলা সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ হামিদুল হক এর সংগে কথা বললে তিনি জানান, রাস্তাটি প্রশস্ত আকারে সংস্কার করার জন্য বরাদ্দ চেয়ে আবেদন জানানো হয়েছে। আগামী ১/২ মাসের মধ্যে অনুমোদন পাবো বলে আশা করছি।

loading...
error: Content is protected !!