loading...

বিলুপ্তির পথে বাংলাদেশর জাতীয় পাখি, গানের পাখি দোয়েল

0

আনোয়ারুল বারী সুমন:

প্রথমেই একটি গানের কথা মনে পড়ে “কোকিল ডাকে কুহু কুহু, দোয়েল ডাকে মুহু মুহু”।
বাংলাদেশ অসংখ্য রূপ-কণ্ঠের পাখির সমারোহে সমৃদ্ধ। যে পাখির গান আর ডালে ডালে নেচে বেড়ানো দেখে মনে আনন্দ জাগে তার নাম দোয়েল।

আকৃতির দিক থেকে দোয়েল ছোট পাখি। স্ত্রী ও পুরুষ দোয়েল রং আকার ও চেহারায় পৃথক হয়। এদের ডানা কালচে বাদামি রঙের, তার মাঝে পিঠঘেষে সাদা ছোপ আর টানা দাগ।লেজ লম্বা, সরু থেকে মোটা।

পোকামাকড় দোয়েলের প্রধান খাদ্য। আকারে ছোট বলে এদের তেমন বেশি খাদ্যের প্রয়োজন হয় না। দোয়েল ঝোপঝাড়ে একাকী বা জোড়াসহ বাসা বেধে বাস করে। মানুষের বসতের কাছাকাছিও এরা বাসা বাধে। এরা খরকুটা বা শুকনো ঘাস জমা করে বাসা তৈরি করে।

নাচের ঢঙে এরা লাফিয়ে চলে। এরা বেশিক্ষণ উড়েনা। দোয়েলের সুর ও সংগীত মোহনীয়। এরা খুব সুন্দর গান করে আর আস্তে আস্তে শিস দেয়। বিশেষ করে বসন্তকালে এদের নাচে ও গানে মন ভরে উঠে। সারাদিন এমনকি সনধ্যার পর পর্যন্ত এরা গান করে। আবার খুব ভোরে আমাদের বাসা বাড়ির আঙিনায় এদের দেখা যায়। খাবার খোজে আর গান কনে।

বাংলার প্রকৃতির সাথে দোয়েলের রূপ, রং মিশে আছে। বাংলার সুজলা-সুফলা- শস্য শ্যামলা প্রকৃতির জাতীয় পাখি দোয়েল। বাংলাদেশের সব জায়গায়ই কম বেশি দোয়েল দেখা যায়। প্রকৃতিক প্রতিকূল পরিবেশ, উচ্চ তাপমাত্রা, শিকারির কবলে ধরা পড়ে দোয়েল বিলুপ্তির পথে চলে যাচ্ছে। দোয়েল সহ সকল পাখির জন্ম, নিরাপদ আশ্রয়স্থল নিশ্চিত করে আসুন এই জাতীয় পাখিকে রক্ষা করি।

loading...
%d bloggers like this: